advertisement
Dr Shantu Kumar Ghosh
advertisement
Dr Shantu Kumar Ghosh
advertisement
advertisement

স্পন্সর ছাড়াই সৌদিতে গ্রিনকার্ড!

প্রবাস ডেস্ক
৯ মে ২০১৯ ১৭:২৬ | আপডেট: ৯ মে ২০১৯ ১৭:২৬

প্রবাসীদের ওপর চরম কড়াকড়ি আরোপের মধ্যদিয়ে নতুন ঘোষণা দিলো সৌদি সরকার। দেশটিতে বিদেশিদের স্থায়ীভাবে বসবাস (পারমানেন্ট রেসিডেন্সি) পেতে ‌গ্রিনকার্ড' চালু করার পরিকল্পনা অনুমোদন দিল সৌদি রাজ দরবার।

গতকাল বুধবার সৌদি আরবের শুরা কাউন্সিল এমন একটি পরিকল্পনা অনুমোদন দিয়েছে। স্পন্সর ছাড়াই যেখানে থাকাটা প্রবাসীদের দুঃসাধ্য, সেখানে এমন সুযোগ বসবাসরত প্রবাসীরা নতুনভাবে আশা দেখছেন।

‘প্রিভিলেজড আকামা’ সিস্টেম নামের এই গ্রিনকার্ড এর খসড়া চূড়ান্ত করেছে ওই কাউন্সিল। এর উদ্দেশ্য বিদেশি উদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করা।
সৌদি আরব ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আরব নিউজের এ্ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ পরিকল্পনার অধীনে বিদেশি দক্ষ অভিবাসীরা এবং পুঁজির মালিকরা সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। বিদ্যমান আকামা ব্যবস্থায় আবাসিক অনুমোদন বা রেসিডেন্সি পারমিটের জন্য প্রয়োজন হতো একজন সৌদি স্পন্সর অথবা নিয়োগকর্তা। কিন্তু নতুন ব্যবস্থায় তা আর দরকার হবে না। এক্ষেত্রে এমন উদ্যোক্তা অথবা পুঁজির মালিক যেসব সুবিধা পাবেন তার মধ্যে তিনি শ্রমিক নিয়োগে সক্ষম হবেন। সম্পদের ও পরিবহনের মালিক হতে পারবেন। বেসরকারি খাতে, বাণিজ্যিক ও শিল্পখাতে কর্মসংস্থান হবে।

সৌদি আরবের ভিতরে মুক্তভাবে চলাচল ও সৌদি আরব ত্যাগ করতে পারবেন। তবে এই সিস্টেমে গ্যারান্টি হিসেবে সুনির্দিষ্ট ফি থাকবে দুই ক্যাটেগরিতে। একটি হলো সম্প্রসারিত আকামা ও অস্থায়ী আকামা। এক্ষেত্রে বৈধ অভিবাসীর একটি ক্রেডিট কার্ড, সুস্বাস্থ্য বিষয়ক রিপোর্ট ও বৈধ পাসপোর্ট থাকতে হবে। কোনো ফৌজদারি অপরাধের রেকর্ড থাকতে পারবে না।

গত মাসে শ্রম মন্ত্রণালয় ও সমাজ উন্নয়ন বিষয়ক বিভাগ ঘোষণা করে যে, তারা গোল্ড কার্ড ইস্যুটিকে সম্প্রসারিত করে আবাসিক প্রোগ্রামের আওতায় নিয়ে আসবে। এজন্য কনসালট্যান্টস ও এজেন্সিগুলোকে এক্ষেত্রে সুবিধাভোগীর প্রণোদনার সম্ভাব্য বিষয়গুলোকে বিশ্লেষণ করার আহ্বান জানানো হয়। গোল্ড কার্ড কর্মসূচি হলো ‘কোয়ালিটি অব লাইফ প্রোগ্রাম ২০২০’-এর অংশ। কাউন্সিল অব ইকোনমিক অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অ্যাফেয়ার্স এটি চালু করে ২০১৮ সালে।