advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

মিরপুরে সেপটিক ট্যাংকে প্রতিবন্ধী কিশোরের লাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৮ নভেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ০১:৫৩
advertisement

নিখোঁজের পাঁচ দিন পর রাজধানীর মিরপুরের পাইকপাড়া সরকারি কলোনির (ডি-টাইপ) একটি ভবনের সেপটিক ট্যাংক থেকে মোহাম্মদ রনি (১৭) নামে এক কিশোরের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল রবিবার বেলা ১১টার দিকে লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ।

স্বজনরা জানান, রনি তার পরিবারের সঙ্গে কল্যাণপুর পোড়া বস্তিতে থাকত। শারীরিকভাবে অক্ষম থাকায় সে কোনোরকমে হাঁটাচলা করত। এ ছাড়া সে মানসিকভাবেও ভারসাম্যহীন ছিল। গত বুধবার সন্ধ্যায় বাসা থেকে বের হওয়ার পর থেকেই সে নিখোঁজ ছিল। তার খোঁজে এলাকায় মাইকিংও করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, গতকাল বেলা ১১টার দিকে কলোনির কয়েকটি শিশু সেপটিক ট্যাংকের পাশে খেলতে যায়। এ সময় তারা ঢাকনা খোলা দেখে উঁকি দিয়ে লাশ ভাসতে দেখে প্রথমে পুতুল মনে করে। শিশুদের জটলা দেখে কলোনির এক নিরাপত্তাকর্মী ছুটে এসে লাঠি দিয়ে নেড়ে নিশ্চিত হন এটি মানুষের লাশ। পরে মিরপুর থানায় খবর দেওয়া হলে পুলিশ এসে অর্ধগলিত লাশটি উদ্ধার করে।

রনির বাবা মৃত জহিরুল ইসলাম। তার মা শুকুরি বেগম কলোনির মডেল একাডেমি স্কুলের পরিচ্ছন্নতা কর্মী এবং সন্ধ্যায় পিঠা বিক্রি করেন। শুকুরি বেগমের তিন ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে রনি ™ি^তীয়।

কলোনির বাসিন্দারা বলছেন, সরকারি এ কলোনির দেখভালের দায়িত্ব মিরপুর গণপূর্ত উপবিভাগের। প্রায় চার মাস ধরে রাস্তার পাশে থাকা সেপটিক ট্যাংকটির ঢাকনা খোলা থাকলেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মী রোকেয়া জানান, গত আগস্টের শুরুতে মশক নিধনের ওষুধ ছিটানোর সময় তিনি ওই ঢাকনা খোলা অবস্থায় দেখতে পান। সেই থেকেই সেটি খোলা ছিল। গণপূর্তের গাফিলতির কারণেই রনির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পরিবারের।

মিরপুর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

advertisement