advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

কারণ অনুসন্ধানে ৩ কমিটি ঘটনাস্থলে গণমন্তব্য গ্রহণ

সিরাজগঞ্জ ও উল্লাপাড়া প্রতিনিধি
১৯ নভেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ০০:৫৯
advertisement

উল্লাপাড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় গঠিত তিনটি তদন্ত কমিটি গতকাল সোমবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তারা দুর্ঘটনাকবলিত এলাকায় তদন্ত এবং গণমন্তব্য গ্রহণ করেন। এ সময় রেল মন্ত্রণালয় গঠিত তদন্ত কমিটি, পাকশী বিভাগীয় তদন্ত কমিটি এবং সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসনের কমিটির কর্মকর্তারা উপস্থিত লোকজন, স্থানীয় দোকান মালিক ও রেলওয়ের কর্মকর্তা-কার্মচারীদের সঙ্গে কথা বলেন।

তদন্তকালে রেল মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটির প্রধান সিওপিএস (পশ্চিম) মো. শহিদুল ইসলাম জানান, তারা দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে উপস্থিত লোকজনের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করছেন এবং তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছেন। পরে কমিটির সদস্যরা বসে তাদের চূড়ান্ত প্রতিবেদন তৈরি করবেন। প্রতিবেদন জমা দেওয়ার আগ পর্যন্ত তারা এ বিষয়ে আর কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসন গঠিত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ফিরোজ মাহমুদ বলেন, আমরা দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বিভিন্ন ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে তদন্তকাজ চালিয়ে যাচ্ছি। আগামী ৫ কর্মদিবস তদন্তকাজ চলবে। প্রতিবেদন জমা না দেওয়া পর্যন্ত এ বিষয়ে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্তের কথা বলা সম্ভব নয়। তবে যে কারণে ট্রেনটি দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে, সেটি উদ্ধারে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এর আগে গত শুক্রবার রেল মন্ত্রণালয় গঠিত তদন্ত কমিটি তাদের তদন্তকাজ পরিচালনা করেন। এতে নেতৃত্ব দেন রেলওয়ের অতিরিক্ত সচিব ফারুকুজ্জামান।

গতকাল তদন্তকাজে অংশ নেওয়া কমিটিগুলোর অপর সদস্যরা হলেনÑ পশ্চিম রেলের প্রধান মেকানিক্যাল প্রকৌশলী মৃণাল কান্তি বণিক, প্রধান প্রকৌশলী আল ফাত্তাহ মোহাম্মদ মাসউদুর রহমান, প্রধান সিগন্যাল এবং টেলিকমনিকেশন প্রকৌশলী সুশীল কুমার হালদার, পাকশী বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন, উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আরিফুজ্জামান, উল্লাপাড়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার গোলাম রহমান, সিরাজগঞ্জ জিআরপি থানার ওসি আক্তার হোসেন, পাকশী রেলওয়ে সহকারী প্রকৌশলী শিপন আলী প্রমুখ।

গত ১৪ নভেম্বর ঢাকা থেকে রংপুরগামী ‘রংপুর আন্তঃনগর এক্সপ্রেস’ উল্লাপাড়া রেলস্টেশনে প্রবেশপথে সম্মুখ পয়েন্টে লাইনচ্যুত হয়ে সাতটি বগি পড়ে যায় এবং ইঞ্জিনসহ তিনটি এসি বগিতে আগুন ধরে যায়। এ ঘটনায় রেলকর্মীসহ ২০ জন আহত হন।

advertisement