advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

কক্সবাজারে আন্তর্জাতিক নৃত্য উৎসব শুরু

সরওয়ার আজম মানিক কক্সবাজার
২৩ নভেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ নভেম্বর ২০১৯ ০০:২৫
advertisement

পর্যটন নগরী কক্সবাজার প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হয়েছে আন্তর্জাতিক নৃত্য উৎসবÑ ওশান ড্যান্স ফেস্টিভাল অফ বাংলাদেশ। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় কক্সকার্নিভাল সেন্টারে চার দিনের এ উৎসব উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ। এ সময় সিনিয়র সচিব হেদায়ত উল্লাহ আল মামুন উপস্থিত ছিলেন। উৎসবে যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, তাইওয়ান, কোরিয়া ও চীনসহ বিশ্বের ১৫ দেশের অন্তত ২০০ নৃত্যশিল্পী অংশ নিচ্ছেন।

উৎসব উদ্বোধন করে প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ বলেন, এতগুলো দেশের শিল্পীদের এক জায়গায় করে এ ধরনের আয়োজন কম শ্রমসাধ্য বিষয় নয়। সুস্থ সংস্কৃতি চর্চার ধারা অব্যাহত রাখতে এ ধরনের উৎসবের বিকল্প নেই। শুধু প্রথমবার নয়, এ আয়োজনের ধারাবাহিকতা যাতে বজায় রাখা যায়- সে উদ্যোগ নেওয়া হবে। যতদিন দায়িত্বে থাকবেন ততদিন এ আয়োজনের জন্য সহযোগিতার প্রদানের আশ্বাস দেন প্রতিমন্ত্রী।

উদ্বোধনের পরপরই শুরু হয় যুক্তরাষ্ট্রের শিল্পীদের পরিবেশনা। বিশ্বের দীর্ঘতম কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতসহ পর্যযটন শিল্পের সঙ্গে সংস্কৃতির মেলবন্ধন রচনা করতে আন্তর্জাতিক নৃত্যশিল্পীদের সংগঠন দ্য ওয়ার্ল্ড ডান্স অ্যালায়েন্স-এশিয়া প্যাসিফিকের বাংলাদেশ শাখার ‘নৃত্যযোগ’ এ উৎসব আয়োজন করেছে।

গতকাল বিকাল পৌনে ৩টার দিকে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কক্সবাজার বিমানবন্দরে পৌঁছলে তাকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (উন্নয়ন ও মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনা) এসএম সরওয়ার কামাল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. আদিবুল ইসলাম এবং বিশিষ্ট নাট্যজন ও সংস্কৃতিকর্মীরা।

উৎসবের প্রথম দিন সমুদ্র পাড়ে প্রথমবারের মতো মঞ্চস্থ হয় নৃত্যনাট্য বাদী-বান্দার রূপকথা। সুকল্যাণ ভট্টাচার্যের নৃত্য পরিচালনায় এতে অংশ নেন শামীম আরা নীপা ও শিবলী মোহাম্মদসহ আশি জনের বেশি শিল্পী। উৎসবের জন্য বাংলাদেশের জাতীয়ভাবে নির্বাচিত দলগুলোর মধ্যে রয়েছে সাধনা, নৃত্যাঞ্চল, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, কল্পতরু, ধৃতি নর্তনালয়, ভাবনা, নৃত্যশৈলী ও বন্ধু সোশ্যাল ওয়েল ফেয়ার সোসাইটি। শিল্পীদের মধ্যে রয়েছেন লায়লা হাসান, মুনমুন আহমেদ, তামান্না রহমান, রাজদ্বীপ ব্যানার্জি, সাজু আহমেদ প্রমুখ। এ ছাড়া বিভিন্ন জেলার শিল্পী ও আদিবাসী শিল্পীরাও এ উৎসবে নাচ করবেন।

advertisement