advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ২৫ নভেম্বর

প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে সাধারণ সম্পাদক পদে

এন এ জাকির বান্দরবান
২৩ নভেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ নভেম্বর ২০১৯ ০০:২৭
advertisement

দীর্ঘ ছয় বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন। আগামী ২৫ নভেম্বর স্থানীয় রাজার মাঠে কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হবে এ সম্মেলন। সম্মেলন ঘিরে নেতাকর্মীদের মাঝে দেখা দিয়েছে উচ্ছ্বাস। প্রতিদিন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন সম্মেলনকে স্বাগত জানিয়ে মিছিল করছে। ইলেকশন না সিলেকশনের মাধ্যমে আসবে আগামী নেতৃত্ব সে বিষয়ে এখনো কিছু জানা যায়নি। যেটাই হোক কেন্দ্র এবং পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপির সিদ্ধান্ত মেনে নেবে সবাই- এমনটাই জানিয়েছেন দলের সিনিয়র নেতারা।

তবে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা জানান, কাউন্সিলে সভাপতি পদে বর্তমান জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লা’র একক নাম শোনা গেলেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে সাধারণ সম্পাদক পদে। এ পদে একাধিক প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে। তাদের মধ্যে দীর্ঘ চার বছর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালনকারী পৌর মেয়র ইসলাম বেবী, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মীপদ দাশ, বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাম্মেল হক বাহাদুরের নাম শোনা যাচ্ছে।

এদিকে বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক মো. শফিকুর রহমান জানান, ২৫ নভেম্বর সোমবার রাজার মাঠে সম্মেলনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এই সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। এ ছাড়াও উদ্বোধক হিসেবে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল আলম হানিফ এমপি, প্রধান বক্তা হিসেবে থাকবেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এমপি, প্রাক্তন সাংগঠনিক সম্পাদক বীর বাহাদুর উ শৈ সিং এমপি, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এমপি, উপপ্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, উপদপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়–য়া, আওয়ামী লীগের সদস্য দীপংকর তালুকদার এমপি উপস্থিত থাকবেন।

এই প্রসঙ্গে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী মোজাম্মেল হক বাহাদুর বলেন, আওয়ামী লীগ একটি গণতান্ত্রিক দল। রাজনীতি করি দীর্ঘদিন ধরে; সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি হবে। তাই আমি প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছি। কাউন্সিলররা তাদের নেতা নির্বাচন করবে অথবা যদি সিলেকশন হয় তবে কেন্দ্র এবং পার্বত্য মন্ত্রীর সিদ্ধান্তের বাইরে আমরা কেউ নই।

থানচি উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি থোয়াইহ্লা মং মার্মা বলেন, বর্তমান কমিটি ভালো নেতৃত্ব দিয়ে গেছে। তাদের সাংগঠনিক কর্মকা- ভালো ছিল। তাদের সুনেতৃত্বের কারণে জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়নে অনেক জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছেন। লামা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম বলেন, জেলা কাউন্সিলে সিলেকশন নাকি ইলেকশন হবে, তা এখনো জানি না। যারাই নির্বাচিত হোক স্বচ্ছ একটা কমিটি চাই, যাদের দ্বারা জেলা কমিটি আরও শক্তিশালী হবে। জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও সম্মেলনে সাধারণ সম্পদক পদে প্রার্থী হতে আগ্রহী লক্ষ্মীপদ দাশ বলেন, আমরা জনগণের সেবার জন্য রাজনীতি করি। তাই আরও ৮-১০ জনের চাহিদাকে আমাদের মূল্যায়ন করতে হয়। দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতি করছি, নেতৃত্ব দেওয়ার ইচ্ছা আমারও রয়েছে। কাউন্সিল ঘিরে আমাদের মাঝে কোনো প্যানেল হয়নি। আমরা চাই বান্দরবানে একটি সুশৃঙ্খল সম্মেলন। আশা করি এই সম্মেলনের মাধ্যমে নেতাকর্মীরা আরও উজ্জীবিত হবে এবং আগামী দিনে বান্দরবানের জেলা আওয়ামী লীগের যোগ্য নেতৃত্ব তুলে আনবে।

advertisement