advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

সাতক্ষীরার আম এবারও বিদেশে যাবে

মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জল, সাতক্ষীরা
৬ মে ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ৫ মে ২০২১ ২৩:০৭
advertisement

আবহাওয়া আর মাটির গুণাগুণের কারণে দেশের অন্য জেলার তুলনায় সাতক্ষীরার আম আগেভাগেই পাকে। তাই মধুমাস জ্যৈষ্ঠ আসার অগেই সাতক্ষীরার বাজারে উঠতে শুরু করেছে বিশ্বমুক্ত গোবিন্দভোগ, গোপালভোগ, বোম্বাইসহ সুস্বাদু বিভিন্ন প্রজাতির দেশি আম। জেলা প্রশাসক ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আনুষ্ঠানিকতায় ১ মে গাছ থেকে পরিপক্ব আম পাড়া শুরু হয়েছে।

উৎপাদন মোটামুটি ভালো হলেও দামে খুশি নন চাষিরা। তবে আমের মান বজায় রাখতে তৎপর জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা। কোনো ধরনের রাসায়নিক ওষুধ ব্যবহার না করে দেশীয় পদ্ধতিতেই চাষিরা বিষমুক্ত আম উৎপাদন করে থাকেন। এ কারণে সাতক্ষীরার আমের কদর দেশ ছাড়িয়ে বিদেশেও। সাতক্ষীরায় এবার ৪ হাজার ১১৫ হেক্টর জমির ৫ হাজার ২৯৯টি আমবাগানে ৪০ হাজার টন আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। এর মধ্যে ৫০০ টন আম জাপান, ইতালি, ফ্রান্স ও ইংল্যান্ডসহ কয়েকটি দেশে রপ্তানি করা হবে। তাই কীভাবে গাছ থেকে নিরাপদে আম সংগ্রহ করা যায়, ইতোমধ্যে সে বিষয়ে নানা কলাকৌশল শেখানো হয়েছে চাষিদের। আম উৎপাদনের লক্ষ্য পূরণ হবে বলেই আশা করছেন কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা।

সাতক্ষীরা আমচাষি কল্যাণ সমিতির সভাপতি লিয়াকত হোসেন জানান, স্থানীয় জাতের গোবিন্দভোগ ও গোপালভোগ আম পাড়া শুরু হয়েছে ১ মে থেকে। এবার আমের ফলন হয়েছে ভালো। কিন্তু বৃষ্টি না হওয়ায় আকার কিছুটা ছোট। তার পরও ফলনে খুশি আমচাষিরা। গেল বছর আমের যে ক্ষতি হয়েছে এবার বাগান মালিকরা তা পুষিয়ে নিতে পারবেন বলে আশা করা যায়।

সাতক্ষীরা কৃষি সম্প্রসার অধিদপ্তর খামারবাড়ির উপপরিচালক কৃষিবিদ নুরুল ইসলাম জানান, জেলার সাতটি উপজেলায় এবার বাগানজুড়ে প্রচুর আম হয়েছে। তাদের নির্দেশনা মতো ১ মে থেকে গোবিন্দভোগ ও গোপালভোগসহ স্থানীয়জাতের আম নামানো শুরু হয়েছে। আগামী ২১ মে থেকে হিমসাগর, ২৭ মে থেকে ল্যাংড়া ও ৪ জুন থেকে আম্রপালি আম ভাঙা শুরু হবে।

advertisement