advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

সোহরাওয়ার্দীতে বৃক্ষনিধনের প্রতিবাদ পরিবেশবাদীদের

ঢাবি প্রতিনিধি
৬ মে ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ৬ মে ২০২১ ০২:৪৪
advertisement

ঢাকার ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গাছ কেটে রেস্তোরাঁ তৈরির প্রতিবাদে সোচ্চার অবস্থান নিয়েছেন পরিবেশবাদীরা। ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চলছে তুমুল সমালোচনা। এ নিয়ে গতকাল বুধবার উদ্যানের টিএসসিসংলগ্ন গেটে মানববন্ধনও করেছে পরিবেশবাদী সংগঠন নোঙর বাংলাদেশ, স্বাধীনতা উদ্যান সাংস্কৃতিক জোট, গ্রিন প্ল্যানেট, তরুণ শিল্পী ও সচেতন সমাজ। মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা স্বাধীনতা সংগ্রামের পীঠস্থান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানকে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান করা যাবে না, উন্নয়ন হোক কিন্তু গাছ কেটে সৌন্দর্যবর্ধন চাই না, উদ্যানের প্রাকৃতিক পরিবেশ টিকিয়ে রেখে উন্নয়নকাজ চলুকসহ নানা সেøাগান দেন।

মানববন্ধনে আইনের পাঠশালার সভাপতি আইনজীবী সুব্রত কুমার দাস বলেন, ‘সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সব উন্নয়নের কেন্দ্রবিন্দু হওয়া উচিত মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। কিন্তু তা হচ্ছে না। এখানে খাবারের দোকান তৈরির নামে প্রকৃতি হত্যার একটা ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে করপোরেট সংস্কৃতির বিকাশ ঘটছে, যার মূলে রয়েছে লুটপাটের অশুভ উদ্দেশ্য। অবিলম্বে এই প্রকৃতি হত্যার প্রকল্প বাতিলের দাবি জানাই।’ এদিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গাছ কাটার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। গতকাল মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা সুফি মারুফ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে- সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এক হাজার গাছ লাগানোর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সরকার। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন করছে। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস ভবিষ্যৎ প্রজন্ম ও বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের আওতায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ইতোমধ্যে শিখা চিরন্তন, স্বাধীনতা স্তম্ভ ও ভূগর্ভস্থ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর প্রভৃতি নির্মাণ করা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সংরক্ষণ, আধুনিক নগর উপযোগী সবুজের আবহে আন্তর্জাতিকমানে গড়ে তোলা ও দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আকৃষ্টের লক্ষ্যে উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ (৩য় পর্যায়) শীর্ষক মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়িত হচ্ছে। এ মহাপরিকল্পনার অংশ হিসেবে বর্তমানে আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ নির্মাণকাজ কাজ চলমান রয়েছে। গৃহীত মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে কিছু গাছ কাটা হলেও প্রায় এক হাজার গাছ লাগানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে এসব কার্যক্রমের বিষয়ে খ-িত তথ্য প্রচারিত হওয়ায় অনেকের মাঝে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হচ্ছে।

advertisement