advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

‘আগ বাড়িয়ে’ কথা বলেছেন চীনের রাষ্ট্রদূত : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

কূটনৈতিক প্রতিবেদক
১২ মে ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ১১ মে ২০২১ ২২:৪৩
advertisement

যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন জোট কোয়াডে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ নিয়ে চীনা রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যকে ‘আগ বাড়ানো’ কথা হিসেবে বর্ণনা করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশ একটি স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র। আমাদের পররাষ্ট্রনীতি আমরা নির্ধারণ করি। যে কোনো দেশ তার বক্তব্য তুলে ধরতে পারে। দেশের মঙ্গলের জন্য আমরা কী কাজ করব না করব, আমাদের মৌলিক অবস্থানের ভিত্তিতে আমরা সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেব। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন। এর আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেককে সঙ্গে নিয়ে ঢাকায় নেপালের রাষ্ট্রদূত বংশীধর মিশ্রার হাতে ওষুধসহ জরুরি চিকিৎসাসামগ্রী হস্তান্তর করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যে কোনো দেশ নিজেদের অবস্থান জানাতে পারে, তবে বাংলাদেশ নিরপেক্ষ ও ভারসাম্যপূর্ণ

পররাষ্ট্রনীতির আলোকেই সিদ্ধান্ত নেবে। তিনি আরও বলেন, উনারা (চীনা রাষ্ট্রদূত) বলতে পারেন। উনি একটি দেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। তারা হয়তো এটা চায় না, তাই তারা বক্তব্য দেবেন। কিন্তু যে প্রতিষ্ঠানের কথা বলেছেন, সে প্রতিষ্ঠানের লোকজন আমাদের কোনো আগ্রহ দেখায়নি। এটা আগ বেড়ে বলা হয়েছে। উনি বলেছেন, দ্যাটস ফাইন, এটা নিয়ে আমাদের বিশেষ কিছু বক্তব্য নেই। কিন্তু আমরা কী করব সে সিদ্ধান্ত আমরাই নেব।

মোমেন বলেন, দেশের মঙ্গলের জন্য আপনারা প্রধানমন্ত্রীকে দেখেছেন, বহু সময় বহু লোক বহু কিছু বলেছেন, কিন্তু আমাদের দেশের স্বার্থের ব্যাপারে দেশের মঙ্গলের জন্য যা যা দরকার তাই করি।

বাংলাদেশকে চার জাতির জোট কোয়াডে যোগ না দেওয়ার পরামর্শ দিয়ে ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং গত সোমবার এক অনুষ্ঠানে বলেন, চীনবিরোধী ওই জোটে বাংলাদেশের অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ক্ষতি করবে। কোয়াড্রিলেটেরাল সিকিউরিটি ডায়ালগ (কোয়াড) নামে পরিচিত ওই জোটে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রয়েছে ভারত, জাপান ও অস্ট্রেলিয়া।

দেশের সাফল্য বেশি প্রচারের পরামর্শ

আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতিকে সমৃদ্ধ করতে সবার সহযোগিতা চাইলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন। পররাষ্ট্রনীতিকে আরও পরিণত ও যুগোপযোগী করার সম্ভাব্য রূপরেখা নিয়ে গতকাল ঢাকায় ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে এক আলোচনাসভায় সভাপতিত্বকালে মন্ত্রী এ আহ্বান জানান। সভায় উপস্থিত রাজনীতিবিদ, সাবেক কূটনীতিক, নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ, বুদ্ধিজীবী ও সাংবাদিকরা দেশের ও বিশ্বের গণমাধ্যমে বাংলাদেশের সাফল্য বেশি বেশি প্রচারের ব্যবস্থা করার পক্ষে তাদের মত তুলে ধরেন। জনবান্ধব কূটনীতির ভিত মজবুত করে বন্ধুরাষ্ট্রগুলোর জনগণের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পৃক্ততা বাড়ানো ভবিষ্যৎ পররাষ্ট্রনীতির অন্যতম মূল উপজীব্য হতে পারে বলে আলোচকরা মত দেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর সময় প্রায় ১৫০টি দেশের রাষ্ট্র বা সরকারপ্রধানের কাছ থেকে শুভেচ্ছাবার্তা এবং ৩৩টি ভিডিওবার্তা পাওয়া গেছে। এসব বার্তায় বিশ্ব নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশের অভাবনীয় সাফল্যের ভূয়সী প্রশংসা এবং প্রধানমন্ত্রীর মানবিক ও বিচক্ষণ নেতৃত্বের প্রতি আস্থা প্রকাশ করেন।

আলোচনাসভায় উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হাবিবে মিল্লাত, পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য ইনাম আহমেদ চৌধুরী, দলটির আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ, সাবেক পররাষ্ট্র সচিব শমসের মুবীন চৌধুরী, তৌহিদ হোসেন প্রমুখ।

advertisement