advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

যুবককে পিটিয়ে হত্যা করলেন ছাত্রলীগ নেতা

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি
১১ জুন ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ১০ জুন ২০২১ ২৩:০৮
advertisement

সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের উত্তর কাজী কসবা গ্রামে মো. নয়ন মিজি নামে এক যুবককে ধরে নিয়ে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে এক ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে। অভিযুক্তের নাম প্রান্ত শেখ। তিনি উপজেলার রামপাল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক।

গত বুধবার বিকালে সিপাহিপাড়া এলাকার প্রতিভা স্কুলের পেছনে কাঠবাগান নিয়ে বিরোধের জেরে প্রান্ত শেখ ও তার সহযোগীরা পিটিয়ে গুরুতর আহত করে নয়ন মিজিকে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মারা যান তিনি। নয়ন মিজি উত্তর কাজী কসবা গ্রামের মৃত আবদুল বাতেন মিজির বড় ছেলে।

নিহতের ছোট বোন পিংকি বেগম জানান, বুধবার বিকাল ৪টার দিকে নয়ন বাড়ি থেকে বের হন। এর আধা ঘণ্টা পর জানতে পারেন, উত্তর কাজী কসবা প্রাইমারি স্কুলের সামনে থেকে প্রান্ত শেখ ও তার সহযোগী রনি, শোভন, কাঞ্চন গংরা নয়নকে তুলে নিয়ে গেছেন। পিংকিসহ স্বজনরা সিপাহিপাড়া এলাকার প্রতিভা স্কুলের কাঠবাগানে

গিয়ে দেখেন- প্রান্ত ও তার সহযোগীরা কাঠের ডাসা ও লোহার রড দিয়ে নয়নকে পেটাচ্ছেন। তারা নয়নকে বাঁচানোর চেষ্টা করেন। পিংকি আরও জানান, নয়নের হাঁস, মুরগি ও কবুতরের খামার আছে। গত রমজানে প্রান্ত শেখসহ আরও কয়েকজন মিলে তার কাছে চাঁদা দাবি করে। চাঁদা না দেওয়ায় তারা নয়নকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। ওই ঘটনায় হাতিমার পুলিশ ফাঁড়িতে অভিযোগ করা হয়। পরে বিভিন্ন সময় নয়নকে প্রান্ত শেখ ও তার সহযোগীরা উঠিয়ে নিয়ে যাবে এবং যেখানে পাবে, সেখানেই মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেয়। এ ঘটনায় বিভিন্ন সময়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে প্রতিকার চাওয়া হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তারা নয়নকে ঠিকই মারল।

নিহতের ছোট মেয়ে নিঝুম বলে, আমাদের চোখের সামনে বাবাকে কীভাবে মারল। বাবার হাত-পা, মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে। আমরা কত হাতে-পায়ে ধরলাম। তার পরও বাবাকে মারছে। আমার বাবার হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নয়ন এলাকায় মুরগি ফার্মের ব্যবসা করতেন। পাশাপাশি কবুতর পালত। গত কয়েক মাস আগে তার ফার্ম থেকে প্রান্ত শেখ, শোভন, কাঞ্চন, রনিরা কবুতর ও মুরগি চুরি করে। এ নিয়ে নয়নের সঙ্গে তাদের দ্বন্দ্ব হয়। এ নিয়ে এলাকায় সালিশ হয়। সেই থেকে নয়নের সঙ্গে দ্বন্দ্ব চলছিল প্রান্তদের। এর জের ধরে গত বুধবার প্রান্ত শেখরা নয়নকে তুলে নিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটিয়েছে বলে দাবি স্থানীয়দের।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মুন্সীগঞ্জ সদর সার্কেল) মিনহাজ-উল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় বুধবার রাতেই মামলা হয়েছিল। সেটি এখন হত্যা মামলায় রূপান্তর করা হবে। এখন পর্যন্ত নাহিদ ও তৌকির নামে দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

advertisement