advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

আফগান শরণার্থীদের যুক্তরাষ্ট্রে ফেরানোর উদ্যোগ

অনলাইন ডেস্ক
৩ আগস্ট ২০২১ ০৩:৩৪ পিএম | আপডেট: ৩ আগস্ট ২০২১ ০৬:০৭ পিএম
ছবি : এপি
advertisement

নির্দিষ্ট শ্রেণির আফগানদের শরণার্থী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে পুনর্বাসন করতে একটি নতুন কর্মসূচি শুরু করেছে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন। গতকাল সোমবার দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ‘প্রায়োরিটি টু’ নামে নতুন ওই শরণার্থী কর্মসূচির পরিকল্পনা ঘোষণা করার কথা জানিয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য জানিয়েছে। তবে এ বিষয়ে মন্তব্যের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করলে তারা কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি বলেও জানানো হয়েছে।

এমন এক সময়ে এই কর্মসূচির কথা জানা গেল, যখন আফগানিস্তান থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে যুক্তরাষ্ট্রের সৈন্য প্রত্যাহার চলছে। এই সৈন্য প্রত্যাহারের মাঝেই দেশটিতে চলছে আফগান ও তালেবানের লড়াই। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে, আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক প্রকল্পে এবং যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক এনজিও এবং গণমাধ্যমের হয়ে যে আফগানরা কাজ করেছেন, তারা নতুন শরণার্থী কর্মসূচির আওতায় থাকবেন। 

তবে এই নতুন শরণার্থীরা আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের সরকার ও তাদের পরিবারগুলোর জন্য যারা দোভাষী হিসেবে ও অন্যান্য কাজে নিয়োজিত ছিলেন, তাদের জন্য গ্রহণ করা স্পেশাল ইমিগ্রেশন ভিসা (এসআইভি) কর্মসূচিতে বিবেচিত হবেন না। প্রায় ৪০০ এসআইভি আবেদনকারীর ভিসা এখন প্রক্রিয়াকরণের চূড়ান্ত পর্যায়ে আছে বলে রয়টার্সের ওই প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের ২০ বছরব্যাপী লড়াইয়ের সময়টিতে যেসব আফগান মার্কিন বাহিনীগুলোকে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছে, তারা এখন তালেবানের প্রতিশোধমূলক হামলার ঝুঁকিতে আছেন। এসব আফগানকে সহযোগিতা করার জন্য বাইডেনের ওপর চাপ সৃষ্টি করে আসছেন যুক্তরাষ্ট্রের আইনপ্রণেতা ও অধিকার বিষয়ক বিভিন্ন সংগঠন।

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন স্বার্থের পক্ষে কাজ করা ব্যক্তিদের সরিয়ে নেওয়ার উদ্যোগ, যাকে ‘অপারেশন অ্যালাইস রেফিউজ’ বলা হচ্ছে, তার প্রথম ধাপে গত সপ্তাহে কিছুসংখ্যক আবেদনকারী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এই উদ্যোগের আওতায় প্রায় ৫০ হাজার বা তার বেশি আফগানকে যুক্তরাষ্ট্রে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

advertisement