advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

৪০০ খেলার একটিও খেলতে পারবেন না আফগান নারীরা

অনলাইন ডেস্ক
১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৭:১১ পিএম | আপডেট: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৮:৫৫ পিএম
২০১৪ সালে আফগানিস্তানের হেরাত প্রদেশের একটি স্কুলে ক্রিকেট খেলছে কিশোরীরা। ছবি : এএফপি
advertisement

আফগানিস্তানের ক্ষমতায় আসার পর তালেবান মন্ত্রিসভায় নারী প্রতিনিধিত্ব, নারীদের জন্য পড়ালেখা ও উচ্চশিক্ষা, খেলাধুলা এবং নারী অধিকার নিয়ে শঙ্কায় ছিলেন অনেকেই। তালেবান মন্ত্রিসভা গঠন করলেও সেখানে কোনো নারীকে অর্ন্তভুক্ত করেনি। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে নারী-পুরুষ আলাদা বসার শর্তে নারীদের পড়ালেখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে নারীদের খেলাধুলার ব্যাপারে শুরু থেকেই তালেবান জানিয়েছে, তাদের খেলাধুলার প্রয়োজন নেই।

গতকাল মঙ্গলবার আফগানিস্তানের নতুন ক্রীড়াপ্রধান বশির আহমেদ রুস্তমজি জানালেন, সাঁতার থেকে ফুটবল, ঘোড়দৌড়সহ মোট ৪০০ রকম খেলাধুলা অনুমোদন করা হবে। তবে এর মধ্যে নারীরা কোনো খেলায় অংশ নিতে পারবেন কি না, তা নিশ্চিতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি।

গত মাসে তালেবান বাহিনী আফগানিস্তান দখলের পর পালিয়ে যান দেশটির অলিম্পিক কমিটির প্রধান। তার পদে বসেন রুস্তামিজ। নারীদের খেলাধুলার বিষয়ে সংবাদ সংস্থা এএফপিকে তিনি বলেন, ‘দয়া করে নারীদের নিয়ে আর প্রশ্ন করবেন না।’

তবে আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (এসিবি) চেয়ারম্যান আজিজুল্লাহ ফজলি এসবিএস রেডিও পশতুকে জানিয়েছেন, নারীদের খেলায় অংশ নেওয়ার বিষয়ে তারা আশাবাদী। তিনি বলেন, ‘খুব শিগগির আমরা আপনাদের সুখবর দিতে পারব’। কিন্তু রুস্তমজির কথায় তেমনটি আশার খবর নেই। রুস্তমজি বলেছেন, ‘সিনিয়র নেতাদের মন্তব্য গুরুত্বপূর্ণ। তারা নারীদের (খেলায় অংশগ্রহণ) অনুমোদন দিতে বললে, আমরা দেব। তা ছাড়া দেব না। আমরা তাদের নির্দেশের অপেক্ষা করছি।’

এর আগে তালেবান ক্ষমতায় থাকতে নারীদের খেলাধুলায় অংশ নেওয়া নিষিদ্ধ ছিল। ছেলেদের খেলাধুলা কঠোর হাতে নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। এবার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর রুস্তমজি বলেন, ‘আমরা কোনো খেলাই নিষিদ্ধ করব না, যতক্ষণ না পর্যন্ত তা শরিয়াহ আইনের পরিপন্থী হয়। ৪০০ রকম খেলাধুলার অনুমোদন রয়েছে।’

গত সপ্তাহে অস্ট্রেলিয়ার সংবাদমাধ্যম এসবিএসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তালেবানের সাংস্কৃতিক কমিশনের উপ-প্রধান আহমদুল্লাহ ওয়াসিক বলেন, ‘নারীদের জন্য খেলাধুলা করাটা গুরুত্বপূর্ণ কিছু নয়। আমি মনে করি না নারীদের ক্রিকেট খেলতে দেওয়া উচিত। কারণ নারীদের জন্য ক্রিকেট খেলা গুরুত্বপূর্ণ নয়।’

ক্রিকেট খেলায় নারীদের মুখ আর শরীর ঢাকা থাকে না। ইসলাম নারীদের এভাবে চলাফেরার অনুমোদন দেয় না বলে জানান তালেবান নেতা আহমদুল্লাহ।

তালেবানের সাংস্কৃতিক কমিশনের উপ-প্রধান আরও বলেন, ‘গণমাধ্যমের এই যুগে সহজেই ছবি আর ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। আর সেসব পুরুষরাও দেখেন। ক্রিকেট আর অন্য যেসব খেলায় নারীদের বেপর্দা হওয়ার সুযোগ থাকে সেসব খেলা ইসলাম ও ইসলামী আমিরাত অনুমোদন করে না।’

আফগানিস্তানের খেলাধুলা ও শারীরিক শিক্ষার ডিরেক্টর জেনারেল হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন কুংফু ও কুস্তিতে চ্যাম্পিয়ন রুস্তমজি। আফগানিস্তানে প্রথম মেয়াদে তালেবান বাহিনী ক্ষমতায় থাকতে কুস্তি ফেডারেশনের চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি।

advertisement