advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

দুই-এক দিনের মধ্যে আরটি-পিসিআর সমস্যার সমাধান

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৭:৩৪ পিএম | আপডেট: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৮:৫০ পিএম
বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান। পুরোনো ছবি
advertisement

প্রবাসীদের সংযুক্ত আরব আমিরাতে (ইউএই) প্রবেশের ক্ষেত্রে আরটি-পিসিআর ইস্যুতে যে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে তা দুই-এক দিনের মধ্যেই সমাধান হয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান। আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উদযাপন অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ আশা ব্যক্ত করেন।

এ সময় বেবিচক চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমরা সর্বাত্মকভাবে চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমাদের একটাই উদ্দেশ্য, শ্রমিকরা যেন দ্রুত ওই দেশে যেতে পারেন। তাদেরও রিকয়্যারম্যান্ট আছে। দুবাই এক্সপো শুরু হয়েছে, ওদের প্রচুর লোক দরকার। কিন্তু আমলাতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় আমাদের কাজটি দেরি হয়ে যাচ্ছে। আশা করছি, আজ-কালের মধ্যে সমাধান হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পর প্রথম দিন থেকেই সিভিল এভিয়েশনের পক্ষ থেকে জায়গা নির্ধারণ করে দিয়েছিলাম। পরবর্তীতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে ভিজিট করে একটা জায়গা নির্ধারণ করে। ওই জায়গায়ও আমাদের ল্যাব স্থাপন সম্পন্ন হয়ে গেছে।’

ইউএই সরকারের একটি শর্ত ছিল জানিয়ে বেবিচক চেয়ারম্যান মফিদুর রহমান বলেন, ‘যে সংস্থাগুলোকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর নির্বাচিত করেছে, তাদের স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউরটা (এসওপি) অবহিত করতে হবে, তারপর তারা অনুমোদন দেবে। এই তথ্যটা আরব আমিরাতে আমাদের রাষ্ট্রদূত পত্রের মাধ্যমে জানিয়েছেন। আমরা দু-সপ্তাহ আগে চিঠি পাঠিয়ে দিয়েছি। আমরা পারসিউ করে যাচ্ছি। ইতিমধ্যে গত পরশুদিন আমাদের ল্যাব স্থাপন সম্পন্ন হয়েছে।’

এ ছাড়া আরব আমিরাতের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ স্থাপন করা ছয়টি ল্যাবের অনুমোদন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘অনুমোদন কাউকেই দেয়নি আরব-আমিরাত। ছয়টি এসওপি আমরা পাঠিয়েছিলাম। অনুমোদন এখনো আসেনি।’ 

তিনি বলেন, ‘তাদের প্রথম অনুমোদন দেওয়া ল্যাবের মাধ্যমে আমরা পরীক্ষামূলকভাবে কিছু যাত্রী পাঠিয়েছিলাম। গতকালও একটা ফ্লাইট গেছে। আজকেও তারা একটা ফ্লাইট পাঠাতে চেয়েছিল। আমি তাদের প্রেসার ক্রিয়েট করার জন্য এই ফ্লাইটটি ক্যান্সেল করেছি। বলেছি, আমাদের ছয়টির অনুমোদন না আসলে আমরা পরীক্ষামূলকভাবে আর কোনো যাত্রী পাঠাব না। প্রেসার ক্রিয়েট করছি, যাতে তারা দ্রুত অনুমোদন দিয়ে দেয়।

advertisement