advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement

দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন খালেদা জিয়া

দেখে এলেন ভাসানী পরিবারের ৫ সদস্য

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৭ নভেম্বর ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৭ নভেম্বর ২০২১ ০২:৩৮ এএম
advertisement

রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন গুরুতর অসুস্থ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন। গতকাল শুক্রবার হাসপাতালে তাকে দেখে এসে এ কথা জানান মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর ছোট মেয়ে মাহমুদা খানম ভাসানী। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ভাসানী পরিবারের পাঁচ সদস্য খালেদা জিয়াকে দেখতে হাসপাতালে যান। অন্যরা হলেন ভাসানীর বড় মেয়ে রিজিয়া ভাসানী, নাতনি সুরাইয়া সুলতানা, নাতি হাবিব হাসান মনার ও নাতি মাহমুদুল হক শানু। আধা ঘণ্টা তারা হাসপাতালে ছিলেন।

হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় গণমাধ্যমকে মাহমুদা খানম বলেন, বেগম জিয়া কথা বলতে পারছেন, তবে খুব ধীরে ধীরে। তিনি খুবই দুর্বল। তার সঙ্গে কথা হলে তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন। তার শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে তাকে বিদেশে পাঠিয়ে চিকিৎসার সুযোগ দেওয়ার জোর দাবি জানাই।

হাবিব হাসান মনার বলেন, আমরা বেগম জিয়াকে দেখতে গিয়েছিলাম। ডাক্তাররা বলেছেন, তার অবস্থা খারাপ। তাকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।

মাহমুদুল হক শানু বলেন, খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার সুযোগ দিতে মওলানা ভাসানীর পরিবারের পক্ষ থেকে আমরা সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।

এ সময় আরও ছিলেন খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান, বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহ উদ্দিন টুকু ও চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার।

মসজিদে মসজিদে দোয়া

খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদসহ দেশের বিভিন্ন মসজিদে বাদ জুমা দোয়া করেছেন বিএনপি নেতাকর্মী-সমর্থকরা। জাতীয় মসজিদের ইমাম মাওলানা মিজানুর রহমান জুমা নামাজের পর মোনাজাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রোগমুক্তির জন্য আল্লাহ রব্বুল আলামিনের রহমত কামনা করেন।

নামাজ শেষে মসজিদের দক্ষিণ প্রাঙ্গণে বিএনপির উদ্যোগে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন ওলামা দলের আহ্বায়ক মাওলানা শাহ নেসারুল হক। এতে অংশ নেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, নজরুল ইসলাম খান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীরবিক্রম, আমান উল্লাহ আমান, আবদুস সালাম, তৈমুর আলম খন্দকার, শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, খায়রুল কবির খোকন, জহির উদ্দিন স্বপন, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, মীর সরফত আলী সপু, সালাহউদ্দিন আহমেদ, রফিকুল আলম মজনু, আমিনুল হক, হাবিবুর রশীদ হাবিব, ইশরাক হোসেন, সাইফুল আলম নিরব, সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, নুরুল ইসলাম নয়ন, মামুন হাসান, আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, হাসান জাফির তুহিন, শহীদুল ইসলাম বাবুল, নজরুল ইসলাম তালুকদার, ইকবাল হোসেন শ্যামল, এলডিপির (একাংশ) শাহাদাত হোসেন সেলিম, জাগপার খন্দকার লুৎফুর রহমান, জাতীয় দলের সৈয়দ এহসানুল হুদা প্রমুখ। এ সময় বায়তুল মোকাররমের চারপাশের গেটে ব্যাপক পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন ছিল। দক্ষিণ গেটের কাছাকাছি স্থানে রাখা হয় পুলিশের রায়ট কার, জলকামানসহ প্রিজন ভ্যান।

বায়তুল মোকাররমে উপস্থিত সাংবাদিকদের খন্দকার মোশাররফ বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মৃত্যুপথযাত্রী। তার জন্য আমরা সারাদেশে দোয়ার আয়োজন করেছি। মন্দির, প্যাগোডাসহ অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয়গুলোতেও প্রার্থনার আয়োজন করা হয়েছে।

চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। এই সরকার এত নির্দয়, তারা রাজনৈতিক হিংসার বশবর্তী হয়ে দেশনেত্রীকে শেষ করে দিতে বিদেশে গিয়ে চিকিৎসার সুযোগ পর্যন্ত দিচ্ছে না। খালেদা জিয়াকে নিঃশর্ত মুক্তি দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠাতে যেসব বাধা রয়েছে, তা দূর করতে সরকারের কাছে আরজি জানান খন্দকার মোশাররফ।

রাজধানীতে মশাল মিছিল

এদিকে খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং তাকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে গতকাল রাজধানীতে মশাল মিছিল করেছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদের নেতৃত্বে গতকাল রাত সাড়ে ৭টার দিকে মিছিল করেন তারা। মিরপুর শেওড়াপাড়া থেকে মিরপুর ১০ নম্বর গোলচত্বরে গিয়ে মিছিলটি শেষ হয়। ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির কাফরুল থানার বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা এতে অংশ নেন।