advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

একরামুন্নেসার শিক্ষার্থীর মৃত্যু : বাস সুপারভাইজার ও হেলপারের স্বীকারোক্তি

আদালত প্রতিবেদক
৩ ডিসেম্বর ২০২১ ০৮:১৭ পিএম | আপডেট: ৩ ডিসেম্বর ২০২১ ০৮:১৭ পিএম
প্রতীকী ছবি
advertisement

রাজধানীর রামপুরায় বাসের চাপায় একরামুন্নেসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী মাইনুদ্দিন ইসলামের মৃত্যুর মামলায় অনাবিল পরিবহনের সুপার ভাইজার গোলাম রাব্বী ওরফে বিন রহমান ও হেলপার চাঁন মিয়া আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। এক দিনের রিমান্ড শেষে আজ শুক্রবার আসানিরা ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শহিদুল ইসলামের কাছে জবানবন্দি দেন। এরপর তাদের কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে দুই আসামিকে আদালতে হাজির করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রামপুরা থানার উপপরিদর্শক (এসআই)মোহাম্মদ আল আমিন মীর জবানবন্দি রেকর্ডের আবেদন করেন।

advertisement

সড়ক পরিবহন আইনে এ মামলায় গত ১ ডিসেম্বর আসামিদের এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এদিকে এ ঘটনায় বাসে অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুরের ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা মামলায় শহীদ বেপারী নামে এক আসামির এদিন আরও দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন একই আদালত।

এক দিনের রিমান্ড শেষে শহীদ বেপারীকে আদালতে হাজির করে আরও সাত দিনের রিমান্ড আবেদন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রামপুরা থানার এসআই তৌহিদুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, গত ২৯ নভেম্বর রাত ১১টার দিকে রাজধানীর রামপুরা এলাকায় অনাবিল সুপার পরিবহনের বাসের চাপায় মাইনুদ্দিন নিহত হয়। এ ঘটনায় রাতে সড়ক অবরোধ করে উত্তেজিত জনতা। এ সময় ঘাতক বাসসহ আটটি বাসে আগুন দেওয়া হয়। ভাঙচুর করা হয় আরও চারটি বাস।

মাইনুদ্দিন নিহতের ঘটনায় তার মা রাশিদা বেগম সড়ক দুর্ঘটনা আইনে মামলা করেন। একই ঘটনায় রামপুরা এলাকায় ৮টি বাসে আগুন ও চারটিতে ভাঙচুর করায় পৃথক একটি মামলা করে পুলিশ। মামলায় অজ্ঞাত পাঁচ শতাধিককে আসামি করা হয়েছে।

advertisement