advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

ভারতের অনুপস্থিতিতে থমকে গেছে আফগানিস্তানের অগ্রগতি

ড. সাকারিয়া করিম
৪ ডিসেম্বর ২০২১ ০৭:১১ পিএম | আপডেট: ৪ ডিসেম্বর ২০২১ ০৭:১২ পিএম
পুরোনো ছবি
advertisement

আফগানিস্তানে ভারতের উপস্থিতি দেশটির অগ্রগতিকে ত্বরান্বিত করেছিল। কিন্তু গত আগস্টের মাঝামাঝি আফগানিস্তানের শাসন ক্ষমতা দখল করে নেয় দেশটির সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠী তালেবান। এরই মধ্য দিয়ে দেশটিতে ভারতের দীর্ঘ দুই দশকের উন্নয়নমূলক কর্মযজ্ঞের ইতি ঘটে।

গত দুই দশকে আফগানিস্তানের বিভিন্ন খাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে নয়াদিল্লি। উল্লেখযোগ্য খাতগুলো-

সামরিক সহায়তা: ভারত ২০১৫ সালে আফগান বিমানবাহিনীকে সামরিক হার্ডওয়্যার, চারটি এমআই-২৫ অ্যাটাক হেলিকপ্টার এবং আফগান ন্যাশনাল আর্মিকে ২৮৫টি সামরিক যান সরবরাহ করে। এ ছাড়া ভারতের কাছ থেকে সামরিক ও গোয়েন্দা প্রশিক্ষণও নিয়েছে আফগান প্রতিরক্ষা বাহিনীর কর্মীরা।

মানবিক সহায়তা: ভারত বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির মাধ্যমে পরিচালিত স্কুল ফিডিং প্রোগ্রামের অধীনে প্রায় ২০ লাখ শিশুকে প্রতিদিন ১০০ গ্রাম ফোর্টিফাইড, উচ্চ-প্রোটিন বিস্কুট সরবরাহ করে। আফগানিস্তানে খাদ্য সংকট কাটাতে ২০০৯ সালে ২ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিকটন গম উপহার দিয়েছিল। এ ছাড়া মানবিক সহায়তার অংশ হিসেবে কাবুলে ইন্দিরা গান্ধী ইনস্টিটিউট অব চাইল্ড হেলথ পুনর্গঠন করে ভারত।

সিভিল এভিয়েশন: ভারত আফগানিস্তানকে তিনটি এয়ারবাস ও এয়ারক্রাফট উপহার দিয়েছে। যেন সেগুলো দিয়ে আফগানিস্তানের দুর্গম প্রান্তগুলোতে যেকোনো জরুরি প্রয়োজন মেটানো যায়। এ ছাড়া দেশটির বেসামরিক বিমান চলাচলের ক্ষেত্রে সক্ষমতা বিকাশের জন্য এয়ারলাইন কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ দিয়েছে নয়াদিল্লি।

টেলিযোগাযোগ: ভারত ২০০৫ সালে আফগানিস্তানের ১১টি প্রদেশে টেলিযোগাযোগ পরিকাঠামো চালু করার উদ্যোগ নেয়। যেখানে ডিজিটাল টেলিফোন এক্সচেঞ্জসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম স্থাপন, টাওয়ার এবং পাওয়ার সাপ্লাই সিস্টেমসহ অবকাঠামো সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে।

পরিবহন: ২০০১ সালের পর ভারত আফগানিস্তানকে ৪০০টি বাস উপহার দিয়েছে, যার মধ্যে ২০৫টি কাবুলে এবং বাকিগুলো দেশটির ২৫টি প্রদেশে হস্তান্তর করা হয়েছে। এর বাইরে দেশটির পার্বত্য অঞ্চলে ব্যবহারের জন্য ২০০টি মিনিবাস, গ্রাম ও শহরতলীর পৌরসভাগুলোর জন্য ১০৫টি ইউটিলিটি গাড়ি উপহার দেওয়া হয়।

শিক্ষাখাত: এ খাতে ভারতের বড় অবদান হাবিবিয়া স্কুল পুনর্গঠন। বৃহৎ এবং ঐতিহ্যবাহী স্কুলটি নির্মাণে ভারত ৫০ লাখ মার্কিন ডলার সহায়তা দেয়। ২০০৩ সালে পুনর্গঠন কাজ শুরু হয় যার সমাপ্তি ঘটে ২০০৫ সালে। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থী সংখ্যা প্রায় ১৮ হাজার!

এর বাইরে, বিগত ২০ বছরে আফগানিস্তানের ৫০০টি ছোট-বড় প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত ছিল ভারত। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল- আফগানিস্তানের পার্লামেন্ট হাউজ, সলমা বাঁধ, জারঞ্জ-দেলমা হাইওয়ে তৈরির মতো প্রকল্প। কিন্তু দেশটি থেকে নয়াদিল্লি মুখ ফিরিয়ে নেওয়া ব্যহত হচ্ছে প্রকল্পসহ অন্যান্য উন্নয়নমূলকও কাজও!

(লেখক- কলামিস্ট)

advertisement
advertisement