advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

টেক্সাসে ১০ ঘণ্টার জিম্মিদশার অবসান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১৭ জানুয়ারি ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৭ জানুয়ারি ২০২২ ১২:৪৪ এএম
advertisement

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে প্রায় দশ ঘণ্টার জিম্মি সংকটের অবসান হয়েছে। ইহুদি ধর্মাবলম্বীদের উপাসনালয় সিনাগগে চারজনকে এক বন্দুকধারী জিম্মি করেছিল। এর পর বন্দুকধারী নিহতের মধ্য দিয়ে জিম্মিদশার শেষ হয়। চারজনকেই জীবিত ও সুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করেছে পুলিশ। বিবিসির খবরে বন্দুকধারীকে ব্রিটিশ নাগরিক হিসেবে বলা হয়েছে। খবরে বলা হয়, স্থানীয় সময় শনিবার সকালে চারজনকে জিম্মি করে বন্দুকধারী। এর পর পুলিশের বিশেষ শাখা ও সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের সেখানে মোতায়েন করা হয়। এ সময় মার্কিন ফেডারেল সংস্থা এফবিআই সদস্যরা কয়েক ঘণ্টাব্যাপী বন্দুকধারীর সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা করেন। প্রায় দশ ঘণ্টা এই সংকট চলতে থাকে। জিম্মিদশা শেষ হওয়ার পূর্ব মুহূর্তে ঘটনাস্থলে গুলি ও বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়। এর পরই বন্দিদের অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

দীর্ঘ জিম্মি নাটকের বিষয়ে টেক্সাসের কোলিভিল শহরের পুলিশ প্রধান মিশেল মিলার বলেন, বন্দুকধারী মারা গেছে। কিন্তু তার মৃত্যু কীভাবে হলো তা নিশ্চিত করেননি তিনি। এফবিআই বলছে, তারা হামলাকারীর পরিচয় নিশ্চিত হলেও প্রকাশ করবে না। এদিকে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দপ্তর জানিয়েছে, টেক্সাসে জিম্মি ঘটনায় নিহত ব্যক্তি ব্রিটের নাগরিক। কিন্তু বিবৃতিতে বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি। এমনকি ব্রিটিশ নাগরিকের পরিচয়ও প্রকাশ করা হয়নি। খবরে বলা হয়, চার বন্দির মধ্যে সিনাগগের একজন ধর্মগুরুও ছিলেন। ঘটনার শুরু থেকেই স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সরাসরি সম্প্রচার করছিল। বন্দুকধারী ও নিরাপত্তা বাহিনীর আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে ছয় ঘণ্টা পর একজন বন্দিকে অক্ষত অবস্থায় মুক্তি দেওয়া হয়। বাকি তিনজন তখনো জিম্মি অবস্থাতেই ছিল।

স্থানীয় মার্কিন সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, পাকিস্তানি স্নায়ুবিজ্ঞানী আসফিয়া সিদ্দিকীর মুক্তি জন্য জিম্মিকারী চারজনকে বন্দি করেছিল। আসফিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ, আফগানিস্তানে কারাগারে থাকার সময় এক মার্কিন সেনা কর্মকর্তাকে হত্যার চেষ্টা করেছিল। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রে তার ৮৬ বছরের জেল হয়েছে। টেক্সাসের একটি কারাগারে সাজা ভোগ করছে আসফিয়া। স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, ওই বন্দুকধারী আসফিয়ার ভাই।