advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement

ত্রিপুরার নতুন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সাহা

বিপ্লব দেবের পদত্যাগ

আমাদের সময় ডেস্ক
১৫ মে ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৫ মে ২০২২ ০২:০৩ এএম
advertisement

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিজেপি নেতা বিপ্লব দেব হঠাৎ পদত্যাগ করেছেন। গতকাল শনিবার বিকালে সবাইকে অবাক করে দিয়ে মেয়াদ শেষের ১০ মাস আগেই রাজ্যপালের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন তিনি। এর আগে শুক্রবার রাজধানী দিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করেছিলেন তিনি। এরপর দিল্লি থেকে রাজ্যে ফিরেই পদত্যাগের ঘোষণা দেন বিপ্লব।

বিপ্লব দেবের পদত্যাগের পরে রাজ্য বিজেপি এক জরুরি বৈঠক ডাকে। বৈঠকে ত্রিপুরার নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দলের রাজ্য সভাপতি মানিক সাহার নাম ঘোষণা করেছে। পেশায় চিকিৎসক মানিক সাহা এখন রাজ্যসভার সাংসদ। মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার পর ছয় মাসের মধ্যে তাকে কোনো বিধানসভা আসন থেকে জিতিয়ে আনতে হবে বিজেপিকে। তবে সেটা খুব একটা কঠিন হবে না বিজেপির পক্ষে। কারণ ৬০ আসনের ত্রিপুরায় বিজেপি গত বিধানসভা নির্বাচনে ৪৪টিতে জয় পেয়েছিল। তারই কোনো একটি থেকে মানিকের জয় নিশ্চিত করতে হবে দলটিকে। আগামী বছরই ত্রিপুরায় বিধানসভা নির্বাচন হওয়ার কথা।

কিন্তু হঠাৎ করে কেন বিপ্লব দেব পদত্যাগ করলেন? বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের বরাত দিয়ে পশ্চিমবঙ্গের আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেননি বিপ্লব। বরং দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশেই তিনি রাজ্যপালকে পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন। বিপ্লব মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরে অনেকবারই বিজেপির অস্বস্তি বাড়িয়েছেন। তার নানা মন্তব্য নিয়ে বিভিন্ন সময় বিতর্ক তৈরি হয়েছে। দলের অস্বস্তি বাড়িয়ে একবার তিনি মুখ্যমন্ত্রীর পদে থাকবেন কিনা, তা ঠিক করতে গণভোট দরকার বলেও মন্তব্য করেছিলেন। সেই সময়েও বেজায় চটেন দলের নেতৃত্ব। কিন্তু এবার কেন তাকে আচমকা সরিয়ে দেওয়া হলো, তার স্পষ্ট কারণ জানা যায়নি। অনেকে মনে করছেন, আগামী বছর হতে চলা ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনে বিপ্লবকে মুখ করে লড়তে চাইছে না বিজেপি। সে কারণেই সময় থাকতে তাকে সরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত।

এদিকে বিপ্লব দেবের পদত্যাগের পর সর্বপরিষদীয় বৈঠকে নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মানিক সাহার নাম ঘোষণার পর বিষয়টি উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানায়, সর্বপরিষদীয় বৈঠকে নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মানিক সাহার নাম ঘোষণা করেন বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। এ সময় তিনি মানিক সাহাকে উত্তরীয় পরিয়ে দিতেই তুমুল হট্টগোল শুরু হয়ে যায়। বৈঠকের মধ্যেই মন্ত্রী রামপ্রসাদ পাল এ নিয়ে আপত্তি করা শুরু করেন। একপর্যায়ে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের উপস্থিতিতেই নেতাদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়ে যায়। কারণ ত্রিপুরায় মানিক সাহার নামকে ঘিরে বিজেপির অন্দরের দ্ব›দ্বকে ঘিরে স্বাভাবিকভাবে দলীয় নেতৃত্ব যথেষ্ট অস্বস্তিতে আছে। দলের একাংশের মতে, বিধায়কদের সঙ্গে আলোচনা না করেই মানিক সাহার নাম ঘোষণা করা হয়েছে। এ নিয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সামনেও ক্ষোভ দেখান তারা।