advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

স্লিমদের চেয়ে ‘মোটারা’ দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্কে বেশি আগ্রহী, বলছে গবেষণা  

অনলাইন ডেস্ক
১৫ মে ২০২২ ১১:৪৩ এএম | আপডেট: ১৫ মে ২০২২ ১১:৪৩ এএম
প্রতীকী ছবি
advertisement

অনেক মানুষই প্রেম খোঁজার জন্য মরিয়া থাকেন। আবার অনেকেই প্রেমটাকে এক ধরনের ‘খেলা’ হিসেবে নিয়ে খুশি থাকতে চান স্বল্পমেয়াদি সম্পর্কে। তবে সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় উঠে এসেছে কীভাবে মানুষের ওজন ডেটিংয়ের উদ্দেশ্য সম্পর্কে ধারণাকে প্রভাবিত করে। যুক্তরাষ্ট্রের আরকানসাস বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা দাবি করেছেন, ‘মোটা’ মানুষ দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্কের ক্ষেত্রে আগ্রহী। অন্যদিকে, স্লিম (পাতলা শারীরিক গড়নের) মানুষকে স্বল্পমেয়াদি সম্পর্কেই বেশি স্বচ্ছন্দ্য বোধ করেন। সমীক্ষায় গবেষকরা দেখতে পান সঙ্গী পছন্দের ক্ষেত্রে কীভাবে আমাদের শারীরিক বৈশিষ্ট্যগুলো কাজ করে।

সামাজিক জার্নালে প্রকাশিত গবেষণায় বলা হয়েছে, অ্যাডিপোসিটি (অতিরিক্ত ওজন হওয়া), একটি ঐতিহ্যগতভাবে অ-চিত্তাকর্ষক বৈশিষ্ট্য, যা ব্যক্তিদের দীর্ঘমেয়াদী মিলনের (এলটিএম) কৌশল পছন্দ করতে পারে। যা একগামিতা এবং বাইপ্যারেন্টাল বিষয়ের ওপর জোর দেয়। এ গবেষণায় বিবেচনা করা হয়েছে যে কীভাবে এ ধরনের শারীরিক বৈশিষ্ট্যগুলি মিলনের অভিযোজনের ধারণাকে আকার দেয়।

গবেষণায় ২৯৫ জন অংশগ্রহণকারীর একটি দলকে কম্পিউটার জেনারেটেড চারটি পুরুষ এবং চারটি নারী দেহ দেখানো হয়েছিল, যাদের হয় উচ্চ বা কম চর্বি এবং ছোট বা বড় পেশি বা স্তন ছিল। প্রতিটি চিত্র দেখার পরে, অংশগ্রহণকারীদের রেট দিতে বলা হয়েছিল যে তারা দীর্ঘমেয়াদী সম্পর্ক বা স্বল্পমেয়াদী সম্পর্কের প্রতি আগ্রহী হবে কিনা। ফলাফলে দেখা গেছে, যে অংশগ্রহণকারীরা দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্কের ক্ষেত্রে মোটা নারী-পুরুষদের বেশি রেট দিয়েছেন। আর পাতলা নারী-পুরুষদের ক্ষেত্রে তারা স্বল্পমেয়াদী সম্পর্ক চান বলে রেট করা হয়েছে।

সাইপোস্টের সঙ্গে কথা বলার সময় গবেষণার প্রথম লেখক মিচ ব্রাউন বলেছেন, আমরা মানুষের শারীরিক গড়ন এবং আত্ম-ধারণার ওপর ভিত্তি করে মিলনের আগ্রহকে স্টেরিওটাইপ করি। যদি আপনি নিজেকে অত্যন্ত আকর্ষণীয় বলে মনে করেন, তাহলে আপনার মনে হতে পারে যে আপনি সাফল্যের উচ্চ সম্ভাবনার কারণে স্বল্পমেয়াদী যৌন কৌশলগুলিতে আরও সহজে নিযুক্ত হতে পারেন। তিনি বলেন, বড় পেশি এবং স্তন পুরুষদের এবং মহিলাদের জন্য আকর্ষণীয়, তাই এই বৈশিষ্ট্যগুলিকে স্বল্পমেয়াদী কৌশলে আগ্রহের ডায়াগনোস্টিক হিসেবে দেখতে চাওয়া উচিত। সূত্র : ডেইলি মেইল।