advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

টপ অর্ডারের ব্যর্থতায় পরীক্ষায় বাংলাদেশ

এম.এম. মাসুক
২৭ মে ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৭ মে ২০২২ ০১:০৫ এএম
advertisement

আবারও চেনা চেহারা; আবারও ব্যর্থ টপ অর্ডার; আবারও বিপদে বাংলাদেশ। টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের চিরচেনা রূপই যেন হঠাৎ করে ব্যাটিং অর্ডার ভেঙে পড়া। তাও এক ম্যাচে দুই-দুইবার! প্রথম ইনিংসের ভুল থেকে কিছুই শিখেননি ব্যাটাররা। দ্বিতীয় ইনিংসেও ধ্বংসস্তূপে পরিণত হলো। ২৩ রানের মধ্যে ৪ উইকেট নেই। দুঃস্বপ্নের মতো ব্যাটিংয়ে শুরু দ্বিতীয় ইনিংসও। প্রথম চার ব্যাটসম্যানের কেউই দাঁড়াতে পারলেন না। ফলে দিন শেষে শুধুই হতাশার গল্প রচনা করলেন ব্যাটাররা। আবারও দৃশ্যপটে মুশফিক-লিটন। দিনশেষে ৪ উইকেটে ৩৪ রান জমা পড়েছে স্কোর বোর্ডে। প্রথম ইনিংসে শ্রীলংকার ১৪১ রানের লিডের বিপরীতে আরও ১০৭ রান পিছিয়ে বাংলাদেশ। হাতে থাকা ৬ উইকেট নিয়েই আজ কঠিন পরীক্ষায় অবতীর্ণ হতে হচ্ছে স্বাগতিকদের। ম্যাচ বাঁচাতে হলে উইকেট পড়ে থাকতে হবে মুশফিকদের।

advertisement

ম্যাচ বাঁচানোর কঠিন পরীক্ষায় দলকে ফেলে দিয়েছে টপ অর্ডারের ব্যর্থতা। দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতেই লংকান দুই পেসার রাজিথা ও ফার্নান্দোর সামনে যেন কাঁপছিলেন ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়। দুবার জীবন পেলেও সফল হতে পারলেন। ১৫ রানে ইনিংসের ইতি টানলেন ফার্নান্দোর বলে সিøপে ক্যাচ দিয়ে। এর আগে ফার্নান্দোর বলে উইকেট দেন তামিম। আবারও কোনো

রান না করে সাজঘরে ফেরেন এ ওপেনার। অধিনায়ক মুমিনুলও রান করতে পারলেন না। অভিজ্ঞ এ দুই ব্যাটারর কাছ থেকে দায়িত্বশীল ব্যাটিং আশা করেছিল দল। যে উইকেটে সেই সকাল থেকে ম্যাথুস ও চান্ডিমাল ব্যাটিং করে শ্রীলংকার ইনিংস পাঁচশ’ ছাড়িয়েছে- সেখানে উইকেটে এসেই ব্যর্থ হলেন তারা। টানা ব্যর্থতা থেকে বেরিয়ে আসতে পারলেন না মুমিনুলও। এ অধিনায়কের প্রসঙ্গে দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে সাকিব জানালেন, মুমিনুলের চেয়ে ভালো খেলোয়াড় কাউকে দেখছেন না। নাজমুল হোসেন শান্তও বারবার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছেন। গতকাল তিনি রান-আউট হয়েছেন। টপ অর্ডার ব্যর্থ হওয়ায় আবারও মহাবিপদে দল। সম্প্রতি বিশেষ করে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং ব্যর্থতার দৃশ্য বারবার সামনে আসছে। এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় ৫৩ ও ৮০ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশের ইনিংস। আবারও বিভীষিকাময় ব্যাটিং। এখন ম্যাচ বাঁচানোর কঠিন পরীক্ষায় বাংলাদেশ। সাকিব জানান, ‘মুশফিক ভাই ও লিটনের মতো যদি কেউ সে রকম ইনিংসে ব?্যাটিং করতে পারে দুজন তা হলে ম?্যাচ বাঁচানোর আশা আছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘দলকে বাঁচাতে হলে আমরা যারা আছি এখনো ছয়টা উইকেট আছে। সবাইকে অবদান রাখতে হবে। পঞ্চম দিনে এ রকম পরিস্থতি ওরা যখন আসবে কাল প্রথম ঘণ্টা তো ফুল অ্যাটাক করবে আমাদের। খুবই স্বাভাবিক। আমরা ওদের জায়গায় থাকলে তাই করতাম। আমাদের সামলাতে হবে। প্রথম ঘণ্টায় যদি উইকেট না হারাই। লাঞ্চ পর্যন্ত না হারাই তা হলে একটা জায়গায় আসার ট্রাই করব।’ সাকিব মনে করেন, নিজে সেঞ্চুরি করে দলকে বাঁচানোর চেয়ে লম্বা সময় যদি ব্যাটিং করতে পারেন- সেটি দলের জন্য ভালো হবে। তিনি বলেন, ‘এখন দলের যা পরিস্থিতি সেঞ্চুরি থেকে আমি যদি তিন ঘণ্টা ব্যাট করি, আশা করি যে দুজন আছে ওরা যদি লাঞ্চ পর্যন্ত খেলতে পারে। আমি তার পর তিন ঘণ্টা ব্যাট করতে পারলে দলের জন্য ওটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ আসলে। লাঞ্চের আগে একটার বেশি উইকেট পড়লে আমরা খুব বাজে অবস্থায় থাকব। লাঞ্চ টাইম গুরুত্বপূর্ণ। যখন দুটি ব্যাটসম্যান এ উইকেটে সেট হয়ে যাবে তখন তাদের আউট করা কঠিন। আপনি যদি দেখেন তাদের দুটি ফ্রন্ট লাইন বোলার হচ্ছে পেসার। পেস বোলাররা মেক্সিমাম পাঁচ থেকে ছয় ওভারের স্পেল করতে পারে। লাঞ্চের ভেতর হয়তো দুজন সর্বোচ্চ দশ দশ বিশ ওভার বল করতে পারবে। ওই থ্রেট সামলাতে পারলে আমাদের জন্য অনেক সহজ হয়ে যাবে। বল পুরান হয়ে যাবে, বোলাররা ক্লান্ত হবে ব্যাটসম্যান সেট।’

বাংলাদেশের বোলারদের ভুগিয়েছে ম্যাথুস ও চান্ডিমাল। দুজনেই সেঞ্চুরি তুলে নেন। ষষ্ঠ উইকেটে ১৯৯ রানের জুটি গড়েন তারা। চান্ডিমাল ১২৪ রানে আউট হলেও ম্যাথুস ১৪৫ রানে অপরাজিত থাকেন। শ্রীলংকাকে ৫০৬ রানে গুটিয়ে দেওয়ার পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান সাকিবের। তিনি ৯৬ রানে ৫ উইকেট শিকারের কৃতিত্ব দেখান। ক্যারিয়ারে ১৯তমবার ৫ উইকেট পেলেন সাকিব। এবাদত হোসেন শিকার করেছেন ৪টি উইকেট। খালেদ আহমেদ বোলিংয়ে পুরোপুরি ব্যর্থ ছিলেন। তাইজুল সম্ভাবনা জাগিয়ে তুললেও উইকেট পাননি।

advertisement