advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বন্যায় সড়কে ক্ষতের চিহ্ন

তাহিরপুরে দুর্ভোগে হাজার হাজার মানুষ

তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি
২৬ জুন ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৬ জুন ২০২২ ১২:১৬ এএম
ভয়াবহ বন্যায় ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সুনামগঞ্জের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা। পানি নেমে জেগে ওঠা তাহিরপুর উপজেলার ক্ষত-বিক্ষত একটি সড়ক -আমাদের সময়
advertisement

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের তোড়ে ও সৃষ্ট বন্যায় তাহিরপুর উপজেলার অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন সড়কের বুকে ভাঙন ও গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। গুরুত্বপূর্র্ণ তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কসহ আশপাশের সড়ক থেকে পানি কমে যাওয়ায় সর্বত্রই বিরাজ করছে ক্ষতের চিহ্ন। ফলে উপজেলার সঙ্গে যানবাহন চলাচল একবারেই বন্ধ রয়েছে। আর এই বেহাল অবস্থা বিরাজ করার ফলে ভাঙাচোরা সড়ক এখন মড়ার উপর খাঁড়ার ঘাতেই পরিণত হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলা থেকে জেলা শহরের সঙ্গে সড়কপথে চলাচলের একমাত্র তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কের বিভিন্ন স্থানে পানির তোড়ে ভেঙে যাওয়ায় নিম্নাঞ্চল সড়কগুলোতে পানি থাকায় চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে উপজেলা সদরে যাওয়া-আসা মানুষজন। উপজেলা বন্যাকবলিত হওয়ায় ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সড়ক। এখনো অনেক সড়ক পানির নিচে ডুবে থাকায় ক্ষতির হিসাব জানা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছেন সড়কসংশ্লিষ্টরা।

advertisement 3

উপজেলার বালিজুরী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজাদ হোসাইন জানান, বন্যায় আনোয়ারপুর-ফতেহপুর সড়কের বেশ কয়েকটি স্থানে ভাঙনে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়াসহ কয়েকটি সেতু সংযোগের সড়ক ভেঙে বেহাল অবস্থা বিরাজ করছে। পানি কমে গেলে দ্রুত সড়ক মেরামত না করলে যান চলাচল সম্ভব হবে না।

advertisement 4

উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাসুক মিয়া জানান, আমার ইউনিয়নের অভ্যন্তরীণ প্রতিটি সড়কে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া বারেকটিলা-চাঁনপুর-ট্যাকেরঘাট সড়কে ব্যাপক ভেঙে চলাচলে দুর্ভোগে পড়েছে চলাচলকারী মানুষজন।

এলজিইডির তাহিরপুর উপজেলা প্রকৌশলী ইকবাল কবির বলেন, দুই দফা বন্যায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে গ্রামীণ রাস্তাঘাটের। বন্যার পর সড়ক থেকে পানি নামার পর ক্ষয়ক্ষতির সঠিক তথ্য জানা যাবে। এই বিষয়ে আমার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানিয়েছি।

advertisement