advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আবার সাফের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন

ক্রীড়া প্রতিবেদক
৩ জুলাই ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ৩ জুলাই ২০২২ ১২:৩০ এএম
advertisement

সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশনের (সাফ) কংগ্রেস গতকাল ঢাকার একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়। আবার সাফের সভাপতির দায়িত্ব পেয়েছেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী মো. সালাউদ্দিন। সাফের সভাপতি পদে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল না। তাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। অবশ্য বিষয়টি আগে থেকেই নিশ্চিত ছিল। সেটি কংগ্রেসের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকতার রূপ পেয়েছে। সাফের কংগ্রেসে সভাপতি নির্বাচিত হলেও দুই সহ-সভাপতি পদ শূন্য রয়েছে। কাজী সালাউদ্দিন জানালেন, ভারত, পাকিস্তান ও নেপাল ফুটবল ফেডারেশনের সমস্যার কারণে পদ দুটি শূন্য। পরের কংগ্রেসে এ বিষয়ের সমাধান হবে। সাফের কংগ্রেসে বাংলাদেশসহ সদস্য দেশগুলোর মধ্যে ভুটান, শ্রীলংকা, নেপাল ও মালদ্বীপের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। ‘ভিসা জটিলতা’র কারণে পাকিস্তানের প্রতিনিধি এবং নিজেদের ফেডারেশনে সমস্যা থাকার কারণে ভারতের প্রতিনিধি উপস্থিত হতে পারেননি।

২০০৯ সালে প্রথমবারের মতো সাফের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন কাজী সালাউদ্দিন। এবার চতুর্থবারের মতো সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। ২০২৬ সাল পর্যন্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করবেন তিনি। নতুন করে সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার আগে গত বছরগুলোয় ৬টি সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজন করেছেন সালাউদ্দিন। এ ছাড়া ৫টি নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ, বয়সভিত্তিক ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপসহ ২৭টি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে সভাপতি সালাউদ্দিনের অধীনে। আবার সাফের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর কাজী সালাউদ্দিন জানান, আগামী বছর সাফ ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজনের মধ্য দিয়ে আগামী বছর থেকে নতুন টুর্নামেন্ট হবে। আগে সাফ ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজনের প্রতিশ্রুতি দিয়েও এ টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে পারেননি সালাউদ্দিন। তবে অতীতের কাজ নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন তিনি। সাফের সদস্য দেশগুলোকে নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে কাজী সালাউদ্দিন বলেন, ‘আমরা বিশ্বের সেরা ফুটবল অঞ্চলের মধ্যে নেই। কিন্তু এ অঞ্চলের ফুটবলকে ওপরে তুলতে আমাদেরকে একটা পরিবার এবং ভ্রাতৃত্ববোধ নিয়ে কাজ করতে হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘২০০৯ সালে যখন আমি সভাপতি হয়েছিলাম, তখন আমাদের কেবল ছিল সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ (ছেলেদের)। কিন্তু এখন আমরা ২৭টি প্রতিযোগিতা করেছি এবং এটা গত বছরগুলোতে আমাদের উন্নতি দেখাচ্ছে।’

advertisement 3

সাফ পুরুষ ও নারী ফুটবলের পাশাপাশি অনূর্ধ্ব-১৫, অনূর্ধ্ব-১৭, অনূর্ধ্ব-১৮ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজন করা হয়েছে। তবে এবার আবার আলোচনায় এসেছে ক্লাব ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ। এ টুর্নামেন্ট আয়োজনের গুঞ্জন ছড়ালেও শেষ পর্যন্ত মাঠে গড়াচ্ছে না। আগামী দুই বছর ক্লাব ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজনের জোর সম্ভাবনা রয়েছে। সাফের কংগ্রেসের পর সংবাদ সম্মেলনে সাফের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক হেলাল জানান, ‘আমরা একটা পরিকল্পনা করেছি। এখন থেকে এক বছর হবে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ, পরের বছর হবে সাফ ক্লাব কাপ চ্যাম্পিয়নশিপ।’

advertisement 4

advertisement