advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

হোটেলকক্ষে নারী চিকিৎসকের লাশ
জড়িত ব্যক্তিকে কঠোর শাস্তি দিতে হবে

১৩ আগস্ট ২০২২ ১২:০০ এএম
আপডেট: ১৩ আগস্ট ২০২২ ১২:০৭ এএম
advertisement

দেশে খুনখারাবির লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না। রাজনৈতিক, সামাজিক, প্রেমের সম্পর্কে অবনতি ও পারিবারিক দ্বন্দ্ব-কলহের কারণে অবলীলায় খুন হচ্ছে মানুষ। অবক্ষয়, অসহিষ্ণু মনোভাব, নির্মমতা, অমানবিকতা, নীতিহীনতা দিন দিন আমাদের সমাজে যেভাবে চেপে বসছে তাতে আতঙ্কিত না হয়ে উপায় নেই।

advertisement 3

গতকাল আমাদের সময়ের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, রাজধানীর পান্থপথে আবাসিক হোটেলে নারী চিকিৎসক জান্নাতুল নাঈম সিদ্দিকাকে সম্পর্কের অবনতির জেরে ছেলে বন্ধু কুপিয়ে হত্যা করেছে। পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, ঘাতক প্রেমিক রেজাউল করিম রেজা বেকার হওয়ায় বিয়ে দিতে রাজি ছিল না জান্নাতুলের পরিবার। এ নিয়ে প্রেমের সম্পর্কে কলহ চলছিল। কলহ থেকে তৈরি হওয়া ক্ষোভের জেরে খুন করা হয় জান্নাতুল নাঈমকে। প্রেমে ব্যর্থ হয়ে বা পারিবারিক দ্বন্দ্ব-কলহের কারণে এমনকি মানুষের মধ্যে সুপ্ত থাকা লোভ ও হিং¯্রতার ভয়াল রূপের কাছে টিকতে পারছে না সামাজিক কিংবা পারিবারিক বন্ধন। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নৃশংস হত্যাকা-ের মতো ঘটনা ঘটছে। ফলে সামাজিক বন্ধনে চিড় ধরা, অস্থিরতা ও পারিবারিক দ্বন্দ্ব-টানাপড়েনে আপনজনকে খুনের প্রবণতা লক্ষ করা যাচ্ছে। মানুষের মূল্যবোধের অবক্ষয়, সহনশীলতা কমে যাওয়া ও সামাজিক অনুশাসনের অভাবে এ ধরনের নৃশংস প্রবণতা বাড়ছে। এ থেকে পরিত্রাণ পেতে হলে পরিবারের পাশাপাশি সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। সচেতনতামূলক কার্যক্রম বাড়ানো দরকার। সামাজিক অনুশাসনের অভাবে অস্থিরতা সৃষ্টি হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা ও সামাজিক বৈষম্য দূর করা দরকার। একের পর এক হত্যার ঘটনা কেন ঘটছে। ধরে নেওয়া যেতে পারে ব্যক্তিগত শত্রুতা, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা থেকে শুরু করে ঢিলে হয়ে যাওয়া পারিবারিক কিংবা সামাজিক বন্ধন অপরাধমূলক কর্মকা-ের জন্য দায়ী। এসব হত্যাকা-ের সঠিক তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। আমরা প্রত্যাশা করি, এমন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হোক যেন এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধ হয়। এ হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিকে কঠোর শাস্তি দিতে হবে। যেন আর কোনোভাবেই এমন নৃশসংতার কথা কেউ চিন্তাও করতে না পারে। যা দেশ এবং মানুষের জীবনের স্বাভাবিকতা বজায় রাখার স্বার্থেই জরুরি।

advertisement 4
advertisement