advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আঁখির বাবাকে হুমকি
দুঃখ প্রকাশ প্রশাসনের, দুই পুলিশ প্রত্যাহার

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১১:১০ পিএম
advertisement

সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ জিতে নতুন ইতিহাস গড়েছে বাংলাদেশ। শিরোপাজয়ে দেশজুড়ে বইছে আনন্দের জোয়ার। এমন সময় নারী ফুটবল দলের ডিফেন্ডার আঁখি খাতুনের বাবার সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় শাহজাদপুর থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মামুনুর রশিদ ও কনস্টেবল আবু মুসাকে থানা থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে তাদের সিরাজগঞ্জ পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়।

advertisement 3

জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যায় সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পৌর সদরের পাড়কোলা গ্রামের আঁখির বাড়িতে অপ্রীতিকর এ ঘটনা ঘটে। এ দিন বিকালে এএসআই মামুনুর রশিদ ও একজন কনস্টেবল সিভিল পোশাকে একটি নোটিশ নিয়ে আঁখির বাড়িতে উপস্থিত হন। এ সময় তার পরিবারসহ উপস্থিত লোকজনের আনন্দ মুহূর্ত বিষাদে পরিণত হয়। এএসআই মামুনুর রশিদ আঁখির বাবা আক্তার

advertisement 4

হোসেনকে জানান, দ্বাবারিয়া গ্রামের মৃত মেছের প্রাংয়ের ছেলে মো. মকরম প্রাং বাদী হয়ে সম্প্রতি সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জোরপূর্বক জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগে একটি মামলা করেন। ফলে

খুন জখম হওয়ার আশঙ্কা থাকায় আদালত উভয়পক্ষকে ওই নালিশি সম্পত্তিতে স্থিতিতাবস্থা বজায় রাখতে নির্দেশ দেন। এতে ফুটবলার আঁখিসহ পাঁচজনকে বিবাদী করা হয়েছে। আঁখির বাবা আক্তার হোসেনকে এ বিষয়ে আদালতের নোটিশটি স্বাক্ষর করে গ্রহণের জন্য বলেন। নোটিশ গ্রহণে অস্বীকৃতি জানালে এএসআই ক্ষুব্ধ হয়ে তার সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। আক্তার হোসেন মোবাইলে বিষয়টি মেয়েকে জানান। এতে ঢাকায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে থাকলেও আঁখির হাসিমুখ মলিন হয়ে ওঠে। বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রকাশ পেলে সমালোচনা শুরু হয়। স্থানীয় প্রশাসন রাতেই তাদের বাড়িতে গিয়ে দুঃখ প্রকাশ করে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান ম-ল জানান, আঁখি খাতুনের বাবা আক্তার হোসেনের সঙ্গে অসদাচরণের বিষয়টি তদন্ত করতে সহকারী পুলিশ সুপার (শাহজাদপুর সার্কেল) হাসিবুল ইসলামকে দিয়ে এক সদস্যের বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত শেষে বিষয়টি প্রমাণিত হওয়ায় দুজনকে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়েছে।

জানা গেছে, সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহম্মদ শাহজাদপুর উপজেলার পৌর সদরের দ্বাবারিয়া মৌজার ১নং খাস খতিয়ানভুক্ত ৮ শতক জমি আঁখির নামে দলিলমূলে স্বত্ব প্রদান করেন। গত ৪ জুন সিরাজগঞ্জ অফিসার্স ক্লাবে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে আঁখির বাবা-মায়ের হাতে জমির দলিল হস্তান্তর করেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার। ফলে আঁখির পরিবারের মাথা গোঁজার একটু ঠাঁই হয়েছিল।

আঁখির বাবা আক্তার হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার মেয়েকে ওই জমি দিয়েছেন। ষড়যন্ত্রমূলকভাবে একটি কুচক্রমহল জাল দলিলের মাধ্যমে ওই জমি দখলের পাঁয়তারা করছে। এ বিষয়ে আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

শাহজাদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, এমন আনন্দের মুহূর্তে এ ধরনের নোটিশ নিয়ে আঁখির বাসায় যাওয়াটা ঠিক হয়নি। ওই এএসআই না বুঝে এ কাজ করেছেন। এ নোটিশটি দুই-একদিন পরে পৌঁছে দিলেও ক্ষতি ছিল না। তবে আদালতের নির্দেশ পালনে বাধ্যবাধকতাও রয়েছে।

শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম এ ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, বিষয়টি জানার পর রাতেই আমি ও শাহজাদপুর থানার ওসি নজরুল ইসলাম আঁখির বাড়িতে ফুলের তোড়া ও মিষ্টি নিয়ে গিয়ে তাদের শুভেচ্ছা জানিয়ে এসেছি। এ ছাড়া এ ঘটনায় তাদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছি।

advertisement