advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ভোট সুষ্ঠু হলে বিএনপি ২৯০ আসন পাবে: রুমিন ফারহানা 

চট্টগ্রাম ব্যুরো
২৮ অক্টোবর ২০২২ ০৯:২২ পিএম | আপডেট: ২৮ অক্টোবর ২০২২ ১০:৫৮ পিএম
ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা। ছবি: সংগৃহীত
advertisement

অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ৩০০ আসনের মধ্যে বিএনপি ২৯০ আসন পাবে বলে দাবি করেছেন ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা। তিনি বলেন, বিএনপি অংশীদারিত্বে বিশ্বাস করে। বহু মত, বহু মানুষের পক্ষে কথা বলে। সুতরাং বিএনপি ক্ষমতায় গেলে জাতীয় সরকার গঠন করবে। আজ শুক্রবার বিকেলে চট্টগ্রাম ক্লাবে বিশিষ্টজনদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।

‘জবাবদিহিমূলক রাষ্ট্র গঠনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন পরবর্তীতে জাতীয় সরকার এবং দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট সংসদ অপরিহার্য’ র্শীষক এ সভার আয়োজন করে বিএনপির মিডিয়া সেল। এতে সভাপতিত্ব করেন বিএনপির মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন। মিডিয়া সেলের সদস্য মীর মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিনের সঞ্চালনায় সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মিডিয়া সেলের সদস্য সচিব শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি। সভায় বিশিষ্টজনরা রাষ্ট্রব্যবস্থার যুগোপযোগী সংস্কারে নির্বাচন পরবর্তী জাতীয় সরকার গঠন ও দ্বিকক্ষবিশিষ্ট সংসদ গঠনে একমত পোষণ করে বিভিন্ন পরামর্শ দেন।

advertisement

বিএনপি ক্ষমতায় গেলে বড় দলের পাশাপাশি ছোট দলের মেধাবীদের নিয়ে সরকার গঠন করবে জানিয়ে রুমিন ফারহানা বলেন, দেশে অনেক ছোট-বড় দল আছে। এসব দল বা দলের নেতারা একেবারে আম জনতার কাছে তেমন পরিচিত নয়। বিএনপি ক্ষমতায় গেলে তাদেরকে নিয়ে জাতীয় সরকার গঠন করবে। আওয়ামী লীগ গত ১৫ বছরে রাষ্ট্রকে এমন এক জায়গায় নিয়ে গেছে যেখানে আইন, বিচার, নির্বাহী বিভাগ এবং রাষ্ট্রের অন্যান্য প্রতিষ্ঠান স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে না। তাই বড় আকারের একটি রাষ্ট্র মেরামতের প্রয়োজন দেখা দিয়েছে। 

advertisement 4

আলোচনা সভায় জহির উদ্দিন স্বপন বলেন, দেশে একদলীয় শাসনক্ষমতা যেন কেউ কোনোদিন প্রতিষ্ঠিত করতে না পারে সেজন্য জাতীয় সরকার ও দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট সংসদ প্রতিষ্ঠা করতে চায় বিএনপি। একটি মানবিক রাষ্ট্র গঠনে জবাবদিহিমূলক রাষ্ট্র গঠন এখন সময়ের দাবি। তাই আওয়ামী লীগ সরকারকে অপসারণ করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন প্রয়োজন।

মিডিয়া সেলের সদস্য কাদের গণি চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, নগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন, চবি রসায়ন বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক হায়াত হোসেন, ডা. জসিম উদ্দিন, এ এস এম বদরুল আনোয়ারসহ আরও অনেকে এই আলোচনা সভায় অংশ নিয়েছেন।

advertisement