advertisement
advertisement
advertisement

জেলে যাওয়া আলভেসকে নিয়ে অবশেষে মুখ খুললেন স্ত্রী

স্পোর্টস ডেস্ক
২৫ জানুয়ারি ২০২৩ ০৫:০১ পিএম | আপডেট: ২৫ জানুয়ারি ২০২৩ ০৫:৩১ পিএম
স্ত্রীর সঙ্গে আলভেস। ছবি: সংগৃহীত
advertisement

যৌন হয়রানির অভিযোগে জেল হওয়া ব্রাজিলিয়ান তারকা দানি আলভেসকে নিয়ে অবশেষে মুখ খুললেন তার স্ত্রী। জোয়ানা সাঞ্জ নামের এই স্প্যানিশ মডেল জানান, তিনি তার দুটি স্তম্ভ হারালেন।

জোয়ানার স্বামী আলভেসের হাজতে যাওয়ার কিছুদিন আগেই তার মা জরায়ু ক্যান্সারে মারা যান। গত সপ্তাহেই ২৯ বছর বয়সী এই মডেল মায়ের মৃত্যুতে ইন্সটাগ্রামে এক আবেগী পোস্ট করেছিলেন।

advertisement

পরে আলভেসের গ্রেপ্তারের ঘটনা জোড়া আঘাত পান জোয়ানা। তিনি সংবাদ মাধ্যমকে উদ্দেশ করে জানান, যেসব মিডিয়া আমার ঘরের বাইরে আছেন তাদের আমার ব্যক্তিগত বিষয়ের প্রতি সম্মান জানাতে বলছি।

advertisement 4

জোয়ানা বলেন, ‘আমার মা এক সপ্তাহ আগে মারা গেছেন। তিনি আমাদের মাঝে আর নেই। আর এখন আমার স্বামীর অবস্থা নিয়ে আমাকে কষ্ট পেতে হচ্ছে। আমি আমার জীবনের দুটি স্তম্ভ হারালাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘অন্যের কষ্টের খবর প্রকাশ না করে সহমর্মিতা দেখান, ধন্যবাদ।’

২০১৭ সালে বার্সেলোনার সাবেক ডিফেন্ডারকে বিয়ে করেন জোয়ানা।

এর আগে গত শুক্রবার আলভেসকে বার্সেলোনার একটি পুলিশ স্টেশনে হাজির হতে বলা হয়েছিল। আলভেস সেখানে আসার পরে তাকে জেরা করেছিল পুলিশ। তার পরে বার্সেলোনার সাবেক ফুটবলারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। শুক্রবারই আদালতে হাজির করানো হয়েছিল তাকে। বিচারক তাকে জেলের সাজা শুনিয়েছিলেন।

জামিন অযোগ্য ধারা দেওয়া হয়েছিল ফুটবলারের বিরুদ্ধে। আলভেসের আইনজীবী জামিনের আবেদন করেছিলেন। কিন্তু আদালতের আশঙ্কা ছিল, এক বার ছাড়া পেলে পালিয়ে যেতে পারেন আলভেস। তাই তাকে জামিন অযোগ্য ধারা দেওয়া হয়েছিল।

গত ২ জানুয়ারি বার্সেলোনার একটি থানায় আলভেসের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেন এক তরুণী। তিনি অভিযোগ করেছেন, গত বছরের শেষ দিনে বার্সেলোনার একটি পানশালায় আলভেসের সঙ্গে তার পরিচয়। সেখানেই শৌচাগারে আলভেস তরুণীকে ধর্ষণ করার চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ। তরুণী জানিয়েছেন, জোর করে তার অন্তর্বাসের মধ্যে হাত ঢুকিয়ে দেন আলভেস। কোনো রকমে সেখান থেকে বেরিয়ে পালিয়ে যান তিনি।

মেক্সিকোর পুমাস ক্লাবে খেলতেন আলভেস। তার জেলের সাজা হওয়ার পরে ক্লাব তাকে ছাঁটাই করে দিয়েছে। পুমাস জানিয়েছে, আলভেসের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে তার পরে তাকে ক্লাবে রাখা যায় না।

 

advertisement