জোন ভাগের তথ্য জানাবে এনডিটিএফ

নিজস্ব প্রতিবেদক
৪ জুন ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৪ জুন ২০২০ ০১:১২

করোনা সংক্রমণের মাত্রা ও মৃত্যুর হার বিশ্লেষণ করে বিভিন্ন এলাকাকে বিভিন্ন রঙে ভাগ করার তথ্য জানাবে ন্যাশনাল ডেটা অ্যানালাইটিকস টাক্সফোর্স- এনডিএটিএফ। মঙ্গলবার এনডিএটিএফের সভাপতি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত টাক্সফোর্সের সভায় এ সিদ্ধান্ত হয় বলে আইসিটি বিভাগের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, ‘এনডিএটিএফ করোনার তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে সংক্রমণের মাত্রা ও মৃত্যুর হার অনুযায়ী বিভিন্ন এলাকাকে লাল, হলুদ ও সবুজ জোনে ভাগ করে জোনের পরিবর্তনের ব্যাপারে করণীয় ও সুপারিশ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে তুলে ধরবে।’ লকডাউন

শেষে সীমিত পরিসরে অফিস খোলার পর পরিস্থিতি সামাল দিতে সংক্রমণের প্রকৃতি অনুযায়ী সারাদেশকে লাল, হলুদ ও সবুজ জোনে ভাগ করার কথা জানিয়েছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তার আগে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় আইসিটি বিভাগের পক্ষ থেকে করোনা ভাইরাস মহামারীর তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে সংক্রমিত বিভিন্ন এলাকাকে উচ্চ, মধ্যম এবং নিম্ন সংক্রমণ এই তিন জোনে ভাগ করার অনুরোধ জানানো হয়।

সভায় ‘কোভিড-১৯ ডেটা অ্যানালাইসিস অ্যান্ড পলিসি রিকমেন্ডশনস’ ও ‘এপিডেমিক মডেলিং অ্যান্ড সিন্ড্রমিক সারভাইলেন্স’ শীর্ষক দুটি পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন যথাক্রমে এটুআই প্রোগ্রামের পলিসি অ্যাডভাইজার আনীর চৌধুরী ও ড. আয়েশা সনিয়া।

সভায় টাক্সফোর্সের কর্মপরিধি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা এবং তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ ও সুপারিশের ব্যাপারে কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সিদ্ধান্তগুলোর মধ্যে রয়েছে পরীক্ষার সিরিয়াল দেওয়ার জন্য অনলাইন পোর্টাল প্রস্তুত এবং ডেটা এনালাইসিসের মাধ্যমে কোন এলাকায় কখন, কোন কোন ক্ষেত্রে সক্ষমতা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন সে ব্যপারে পরামর্শ প্রদান এবং বিজেএমইএর সঙ্গে যৌথ উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে দেশের জনগণের জন্য স্বল্পমূল্যে কার্যকর মাস্ক তৈরিতে সহায়তা প্রদান ।

সভায় বক্তব্য রাখেন এনডিএটিএফের সদস্য আইসিটি বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব এনএম জিয়াউল আলম ও অতিরিক্ত সচিব রাশেদুল ইসলাম, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব শামসুল আরেফিন, এটুআইর প্রকল্প পরিচালক ড. আবদুল মান্নান ও পলিসি অ্যাডভাইজার আনীর চৌধুরী, ডিজিটাল সিকিউরিটি এজেন্সির (ডিএসএ) মহাপরিচালক রেজাউল করিম, এলআইসিটি প্রকল্পের আইটি-আইটিইএস পলিসি অ্যাডভাইজার সামি আহমেদ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (পরিকল্পনা) ডা. ইকবাল কবির।