advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত আমার ভুল

সাইফুল ইসলাম রিয়াদ, ইন্দোর থেকে
১৫ নভেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ নভেম্বর ২০১৯ ০০:০২
advertisement

ভারতের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচ দিয়ে টেস্টের বিশ্বকাপখ্যাত আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের যুগে পা দিয়েছে বাংলাদেশ। গতকাল ইন্দোরের হল্কার স্টেডিয়ামে শুরু হওয়া দুই টেস্ট সিরিজের প্রথম দিন ব্যাটসম্যানদের বিব্রতকর ব্যাটিং বিবর্ণ হয়ে যায় বাংলাদেশের। এই ম্যাচে দেশের ক্রিকেটের ১১তম অধিনায়ক হিসেবে টস করতে নামেন মুমিনুল হক। অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকেই টস ভাগ্য কথা বলে তার হয়ে। ভারতের ভয়ঙ্কর বোলিং আক্রমণ থাকা সত্ত্বেও মুমিনুল ব্যাটিং নেওয়ার সাহসিকতা দেখিয়েছেন। তবে ব্যাটসম্যানরা ব্যর্থ হওয়ায় প্রশ্ন ওঠে টস জিতে ব্যাটিং কেন নেওয়া হলো? প্রথম দিন শেষে মুমিনুল বলেন, ‘ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত আমার ভুল।’

টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে মুমিনুল সব দোষ নিজের ওপর টেনে নেন। গতকাল তিনি বলেন, ‘বলছিলাম যে, আপনি যখন টসে হারবেন অথবা জিতবেন, এ রকম একটা ইনিংস যখন ফল করবে, তখন এ রকম প্রশ্ন আসতেই পারে। পার্সোনালি আমার কাছে মনে হয় আমরা মানে অল্প রানে অলআউট হওয়ায় এই প্রশ্ন আসে। ভালো হলে আসত না। আমার মনে হয়, আমার ডিসিশনটা খারাপ ছিল, টোটালি মাই ফল্ট।’

বাংলাদেশ দুই ওপেনারকে হারায় শুরুতেই। সেই ধাক্কা আর সামলে উঠতে পারেনি দল। মাঝে অধিনায়ক নিজে মুশফিককে সঙ্গে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেও পারেননি। দুজনের চতুর্থ উইকেটের জুটি থেকে আসে ৬৬ রান। সর্বোচ্চ ৪৩ রান করেন মুশফিক আর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৭ রান আসে মুমিনুলের ব্যাট থেকে। এ ছাড়া লিটন অ্যাগ্রেসিভ ব্যাটিং করে ২১ রান করেন। ৫৮ ওভার তিন বলে বাংলাদেশের ইনিংস থেমে যায় ১৫০ রানে।

মুশফিক-লিটনের প্রশংসা করলেও মুমিনুল নিজের আউটকেই দেখছেন বড় করে। তার মতে, ওই সময় আউট না হলে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস আরও লম্বা হতো। ‘আমার কাছে মনে হয় পরে আমরা ভালো অ্যাটাক করে গেছি। আমি আর মুশফিক ভাই খুব ভালো অ্যাটাক করেছি। লিটন পরে অ্যাটাক করেছে। তো আমার কাছে মনে হয় পুরা ইনিংসটা হয়তো আমার ফল্ট ছিল যে, আমি যদি ওই সময় আউট না হতাম, হয়তো একটু ভালো ইনিংস খেলতে পারতাম। ভালো একটা ইনিংস হতো’Ñ নিজের আউটকে বড় করে দেখে এভাবেই বলছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

ব্যাটসম্যানদের কেন এমন ব্যর্থতা? ভারত যেখানে ব্যাটিং করতে নেমে ২৬ ওভারে ৮৬ রান তুলে ফেলেছে, বাংলাদেশ সেখানে ১৫০ রান করতেই সব উইকেট হারিয়ে ফেলে। উইকেট কি ব্যাটিংয়ের জন্য কঠিন ছিল? এমন প্রশ্নে উত্তর উইকেট আনপ্লেবল ছিল না। মুমিনুল বলেন, ‘না উইকেট আনপ্লেঅ্যাবল ছিল না। তারা ওয়ার্ল্ডের ১ নম্বর বোলিং সাইড আমার কাছে মনে হয়। তো এ দেশের সাথে খেলতে হলে অনেক বেশি স্ট্রং হতে হবে তাদের চেয়ে। হয়তো আমরা ওই জায়গায় একটু পিছিয়ে গিয়েছিলামÑ আমার কাছে তা-ই মনে হয়। আনপ্লেঅ্যাবল হলে হয়তো অনেকে ইনজুরড হয়ে যেত। তো আমার কাছে মনে হয় আনপ্লেঅ্যাবল ছিল না। আনপ্লেঅ্যাবল হলে আমি কিছু রান করতে পারতাম না, মুশফিক ভাইও সফল হতে পারতেন না। প্লেঅ্যাবল ছিল বলা চলে। হয়তো আমরা মাঝখানের ডিসিশনটায় খুব মনোযোগী হতে পারিনি।’

দল গঠন করা হয়েছে দুইজন অনভিজ্ঞ পেসারকে নিয়ে। অফফর্মে থাকায় মোস্তাফিজে আস্থা রাখতে পারেনি টিম ম্যানেজমেন্ট। আবু জায়েদ শুরুতে রোহিত শর্মাকে ফেরালেও তার বোলিংয়ে তেমন একটা ধার ছিল না। এবাদত হোসেনেরও তা-ই। কিন্তু দেখেন যে দুজন পেস বোলার বল করেছে, তারা কিন্তু বেশি টেস্ট ম্যাচ খেলেনি। বেশি হলে পাঁচ থেকে ছয়টা। আমার কাছে মনে হয়, খুব বেশি এক্সপেকটেশন ও করা যাবে না। কারণ ওদের একটু সময় লাগবে। যেহেতু পেস বোলার, আপনি জানেন যে টেস্ট ক্রিকেটে কিন্তু ভালো কিছু হতে হলে একটু সময় লাগে’Ñ নিজের দলের পেসারদের থেকে বেশি প্রত্যাশা করেন না জানিয়ে এভাবেই বলছিলেন মুমিনুল।

স্কোর কার্ড

ভারত বনাম বাংলাদেশ

ভেন্যু : ইন্দোর

প্রথম টেস্ট, প্রথম দিন

টস : বাংলাদেশ

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস

রান বল চার ছয়

সাদমান ক সাহা ব শর্মা ৬ ২৪ ১ ০

ইমরুল ক রাহানে ব যাদব ৬ ১৮ ১ ০

মুমিনুল ব অশ্বিন ৩৭ ৮০ ৬ ০

মিঠুন এলবি ব সামি ১৩ ৩৬ ১ ০

মুশফিক ব সামি ৪৩ ১০৫ ৪ ১

মাহমুদউল্লাহ ব অশ্বিন ১০ ৩০ ১ ০

লিটন ক কোহলি ব শর্মা ২১ ৩১ ৪ ০

মিরাজ এলবি ব সামি ০ ১ ০ ০

তাইজুল রান আউট ১ ৭ ০ ০

আবু যায়েদ অপরাজিত ৭ ১৪ ০ ০

এবাদত ব যাদব ২ ৫ ০ ০

অতিরিক্ত (লেবা ৩, ও ১) ৪

মোট (অলআউট, ৫৮.৩ ওভার) ১৫০

উইকেট পতন : ১-১২ (ইমরুল), ২-১২ (সাদমান), ৩-৩১ (মিঠুন), ৪-৯৯ (মুমিনুল), ৫-১১৫ (মাহমুদউল্লাহ), ৬-১৪০ (মুশফিক), ৭-১৪০ (মিরাজ), ৮-১৪০ (লিটন), ৯-১৪৮ (তাইজুল), ১০-১৫০ (এবাদত)।

বোলিং : শর্মা ১২-৬-২০-২, যাদব ১৪.৩-৩-৪৭-২, সামি ১৩-৫-২৭-৩, অশ্বিন ১৬-১-৪৩-২, জাদেজা ৩-০-১০-০

ভারত প্রথম ইনিংস

রান বল চার ছয়

আগারওয়াল অপরাজিত ৩৭ ৮১ ৬ ০

রোহিত ক লিটন ব যায়েদ ৬ ১৪ ১ ০

পুজারা অপরাজিত ৪৩ ৬১ ৭ ০

অতিরিক্ত ০

মোট (১ উইকেট, ২৬ ওভার) ৮৬

উইকেট পতন : ১-১৪ (রোহিত)

বোলিং : এবাদত ১১-২-৩২-০, যায়েদ ৮-০-২১-১, তাইজুল ৭-০-৩৩-০

advertisement