advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

ধুনটে সরকারি ও বেসরকারি ৯ প্রতিষ্ঠানে দুর্বৃত্তের তালা

নিজস্ব প্রতিবেদক বগুড়া
২৩ নভেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ নভেম্বর ২০১৯ ০০:২৭
advertisement

বগুড়া ধুনট উপজেলার গোপালনগর ইউনিয়নে সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ ৯টি প্রতিষ্ঠানের কার্যালয়ে গত ১৯ নভেম্বর রাতের বেলায় তালা লাগিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় স্থানীয়দের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। গতকাল শুক্রবার সকালে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (টিও) কামরুল হাসান এক চিঠিতে এ তথ্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজিয়া সুলতানাকে জানিয়েছেন।

তালা লাগানো প্রতিষ্ঠানগুলো হলোÑ উপজেলার গোপালনগর ইউনিয়ন পরিষদ, গোপালনগর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র, গোপালনগর ইউনিয়ন ভূমি অফিস, গোপালনগর উচ্চবিদ্যালয়, বাঁশপাতা উচ্চবিদ্যালয়, চকমেহেদী মাদ্রাসা, চকমেহেদী কমিউনিটি ক্লিনিক, চকমেহেদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এক ও দুই।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ১৯ নভেম্বর দিনব্যাপী কার্যক্রম শেষে এসব প্রতিষ্ঠানে যথানিয়মে তালা লাগিয়ে বাড়িতে যান প্রতিষ্ঠান প্রধানরা। ওই রাতের কোনো এক সময় কে বা কারা ৯টি প্রতিষ্ঠানের কার্যালয়ে একাধিক তালা লাগিয়ে দেয়। প্রতিষ্ঠানপ্রধানরা পরের দিন ২০ নভেম্বর সকালে প্রতিষ্ঠানে গিয়ে কার্যালয়ে দুর্বৃত্তের লাগানো তালা দেখতে পান।

তবে এসব প্রতিষ্ঠানে কোনো ধরনের ক্ষতি সাধন করেনি দুর্বৃত্তরা। ঘটনার রাতে সরকারি ও বেসরকারি ওইসব প্রতিষ্ঠানে নৈশপ্রহরী ছিল না। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের ঊর্র্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে ২০ নভেম্বর প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যালয়ের তালা ভেঙে যথানিয়মে কার্যক্রম পরিচালনা করেন তারা।

এ বিষয়ে চকমেহেদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আল ফারুক জানান, এ ঘটনার পর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার (টিও) মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। তবে তালা লাগানোর এ ঘটনায় অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

ধুনট উপজেলার গোপালনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন সরকার জানান, প্রাথমিক অনুসন্ধানে এ ঘটনার সঙ্গে স্থানীয় এক মানসিক প্রতিবন্ধী (পাগল) যুবকের জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। তবে ঘটনার পর থেকে ওই যুবক পলাতক থাকায় প্রকৃত কারণ জানা সম্ভব হয়নি।

ধুনট থানার ওসি ইসমাইল হোসেন জানান, অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ধুনট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাজিয়া সুলতানা জানান, এ বিষয়ে ২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তবে অভিযোগে কারও নাম উল্লেখ নেই। তারপরও ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

advertisement