advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ২৯ নভেম্বর

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
২৩ নভেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২২ নভেম্বর ২০২০ ২২:০১
advertisement

আগামী ২৯ নভেম্বর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু সেতুর ৩০০ মিটার উত্তরপাশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন। গতকাল দুপুরে সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসক হলরুমে প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভায় রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন এ কথা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম এবং পূর্ব পাশে দুটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন।

নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা) ও বাংলাদেশ সরকারের (জিওবি) অর্থায়নে প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয়েছে ১৬ হাজার ৭৮০ কোটি টাকা। যার মধ্যে বাংলাদেশ সরকার দিচ্ছে ৪ হাজার ৬৩১ কোটি টাকা আর জাইকা দিচ্ছে ১২ হাজার ১৪৯ কোটি টাকা।

তিনি বলেন, প্রকল্পটির মেয়াদ ধরা হয়েছে ১ জুলাই ২০১৬ থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০২৫ সাল পর্যন্ত। তবে সেতুর নির্মাণ কাজ ২০২৪ সালের মধ্যে শেষ হবে এবং সেতুর ওপর দিয়ে ট্রেন চলাচল শুরু করবে। বঙ্গবন্ধু সেতুর সমান্তরাল ডুয়েলগেজ ডাবল ট্র্যাকসহ ৪.৮০ কিলোমিটার দীর্ঘ হবে। দুই প্রান্তে আধুনিকীকরণসহ ইয়ার্ড রিমডেলিং থাকবে। নির্মাণ করা হবে রেলওয়ে ব্রিজ মিউজিয়াম।

রেলমন্ত্রী বলেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে ব্রডগেজে ট্রেন প্রতি ঘণ্টায় ১২০ কিলোমিটার এবং মিটারগেজে প্রতি ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটার বেগে চলাচল করতে পারবে। বর্তমানে ৩৮টি ট্রেনের স্থলে ৮৮টি ট্রেন চলাচল করবে। চলাচল করবে কন্টেইনার ট্রেনও। ট্রেনের বগিতে সব ধরনের মালামাল পরিবহন করা যাবে। এতে করে রাজধানী ঢাকাসহ বাংলাদেশ রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে উন্নত রেল যোগাযোগ হবে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ বিশ্বাস, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না এমপি, রেল মন্ত্রণালয়ের সচিব সেলিম রেজা, রেল বিভাগের মহাপরিচালক মো. শামছুজ্জামান, সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহাম্মদ, পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম প্রমুখ।

advertisement