advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

জাতীয়করণের দাবি এবতেদায়ি মাদ্রাসাকে

নিজস্ব প্রতিবেদক
৬ মে ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ৫ মে ২০২১ ২২:৩৯
advertisement

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো সব এবতেদায়ি মাদ্রাসা জাতীয়করণসহ সাত দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ স্বতন্ত্র এবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতি। দাবি আদায় না হলে ২৩ মে দেশের সব জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন এবং ৩০ মে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।

গতকাল বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র‌্যাব) কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন থেকে এসব দাবি জানানো হয়। কর্মসূচি ঘোষণা করেন সমিতির মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমান।

এবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির অন্য দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- কোডবিহীন মাদ্রাসাগুলো মাদ্রাসা বোর্ডে কোড নাম্বারে অন্তর্ভুক্ত করা; মাদ্রাসা নীতিমালা-২০১৮ সংশোধন করে একজন আলিম শিক্ষকের পরিবর্তে এইচএসসি পাস কাউকে অন্তর্ভুক্ত করা; অফিস সহায়ক নিয়োগ প্রদান; মাদ্রাসা শিক্ষকদের পিটিআই ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করা; মাদ্রাসায় আসবাবপত্রসহ ভবন নির্মাণ করা এবং মাদ্রাসার স্থায়ী রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মোখলেছুর বলেন, ১৯৯৪ সালের একই পরিপত্রে রেজিস্ট্রার বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষকদের বেতন ৫০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। বিগত সরকারের সময়ে ধাপে ধাপে বেতন বৃদ্ধি হতে হতে ২০১৩ সালের ৯ জানুয়ারি বর্তমান সরকার ২৬ হাজার ১৯৩টি বেসরকারি প্রাইমারি স্কুল জাতীয়করণ করে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মতো সরকারের সব কাজে অংশগ্রহণ করেন এবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষকরা। অথচ মাস শেষে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ২০-৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত বেতন পান। কিন্তু এবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষকরা তেমন কোনো বেতন পান না। তবু তারা শিক্ষকতা চালিয়ে যাচ্ছেন। ১৫১৯টি মাদ্রাসায় সর্বসাকল্যে প্রধান শিক্ষক ২৫০০ টাকা এবং সহকারী শিক্ষক ২৩০০ টাকা ভাতা পান। বাকি রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত মাদ্রাসার শিক্ষকরা ৩৭ বছর ধরে বেতনভাতা বঞ্চিত।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সমিতির সহসভাপতি মাওলানা মো. শাহজাহান, মাওলানা এবিএম আব্দুল কুদ্দুস, যুগ্ম মহাসচিব আবু মুসা ভূঁইয়া প্রমুখ।

advertisement