advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

তালাত মাহমুদের প্রয়াণ

৯ মে ২০২১ ০০:০০
আপডেট: ৮ মে ২০২১ ২৩:৫১
advertisement

তালাত মাহমুদ (২৪ ফেব্রুয়ারি, ১৯২৪-৯ মে, ১৯৯৮) উপমহাদেশের প্রখ্যাত গজল গায়ক। তাকে ভারতীয় উপমহাদেশের অন্যতম সেরা পুরুষ অ-শাস্ত্রীয় ও অর্ধ-শাস্ত্রীয় গায়করূপে বিবেচনা করা হয়ে থাকে। তিনি ছিলেন সহজাত প্রতিভা ও অনুপম সৌন্দর্যচেতনার অধিকারী। অভিনয় করেছেন চলচ্চিত্রেও।

১৯৯২ সালে চলচ্চিত্রে সুরের অপূর্ব ব্যবহার ও গজলে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ভারত সরকার পদ্মভূষণ পদকে ভূষিত করে তালাতকে। ১৯৫০ ও ১৯৬০-এর দশকে তার গানগুলোয় উচ্চ সাহিত্যিক কথকতার প্রয়োগ ছিল। বোদ্ধা উর্দুভাষীদের কাছে তার বিশেষ কদর ছিল। এ সময় তার বাতিলকৃত গানগুলোও জনপ্রিয়তা লাভ করে।

অবিভক্ত ভারতের উত্তর প্রদেশের লখনৌতে জন্ম তালাত মাহমুদের। শৈশবেই তিনি সংগীতের প্রতি তার গভীর মনোযোগ প্রদর্শন করেন। পুরো রাত জেগে তিনি নিবিষ্টচিত্তে তৎকালীন বিখ্যাত ভারতীয় শাস্ত্রীয় গায়কদের গান শুনতেন।

১৯৩০-এর দশকের শেষদিকে লখনৌর মারিস সংগীত মহাবিদ্যালয়ে প-িত এসসিআর ভাটের কাছে ধ্রুপদী সংগীতে হাতেখড়ি নেন। ১৯৩৯ সালে গজল গায়করূপে সংগীত জীবন শুরু করেন। ১৯৩৯ সালে ১৬ বছর বয়সে অল ইন্ডিয়া রেডিও, লখনৌ-এ দাগ, মির, জিগর গজল গেয়ে তার সংগীতজীবনের সূচনা।

গজল গায়ক হিসেবে তার সুখ্যাতি লখনৌ ছাড়িয়ে কলকাতা পর্যন্ত পৌঁছে, পরে যা তার গন্তব্য হয়ে যায়। তখন কলকাতায় ছিলেন বিখ্যাত গজল গায়ক ও সংগীতজ্ঞ উস্তাদ বরকত আলি খান, কে এল সাইগল ও এম এ রউফের মতো ব্যক্তি। ১৯৪৪ সালে তার গানের ডিস্ক সর্বাধিক বিক্রীত হিসেবে জায়গা করে নেয়। তার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে উপমহাদেশে। তালাত কলকাতা ও বোম্বের ১৬টির মতো চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ১৯৪৯ সালে হিন্দি চলচ্চিত্রে গান করার জন্য তালাত মাহমুদ বোম্বে চলে যান। ‘আরজু’ ছায়াছবিতে অনিল বিশ্বাসের পরিচালনায় তার গাওয়া ‘আয় দিল মুঝে এইছি জাগা লে চল জাঁহা কোয়ি না হো’ গানটি তাকে বিশাল সফলতা এনে দেয়। সুদীর্ঘ সংগীত জীবনে প্রায় আটশ গান গেয়েছেন তালাত মাহমুদ। ১৯৯৮ সালের ৯ মে বোম্বেতে প্রয়াত হন এই প্রখ্যাত গজলগায়ক। আমাদের সময় ডেস্ক

advertisement