advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

চট্টগ্রাম বন্দর ছুটিতেও পুরো সচল থাকবে

নামাজের জন্য ৮ ঘণ্টা বন্ধ কার্যক্রম

চট্টগ্রাম ব্যুরো
১২ মে ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ১১ মে ২০২১ ২২:২৮
advertisement

ঈদের দিন আট ঘণ্টা বাদে ঈদের ছুটিতে পুরোপুরি সচল থাকবে দেশের প্রধান সমুদ্র বন্দর। দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য সচল রাখতে বন্দরের কার্যক্রম পুরোপুরি চালু রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এজন্য পর্যাপ্ত জনবল কর্মস্থলে উপস্থিত থাকবেন। একইভাবে ১৯টি বেসরকারি ডিপোতেও সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সিঅ্যান্ডএফ, শিপিং এজেন্টসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে বৈঠক করে এসব সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে। ঈদের ছুটিতে আমদানি-রপ্তানি সচল রাখতে বন্দর কর্তৃপক্ষ ওই বৈঠকের আয়োজন করেছিল।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, বৈঠকে ১৮৫ মিটারের বড় জাহাজ বন্দর জেটিতে ভিড়ানোর জটিলতা নিরসনের ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। ঈদের পরে এ বিষয়ে শিপিং এজেন্টসদের সঙ্গে বৈঠক করে সমাধানে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের আশ^াস দিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

শিপিং এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক খায়রুল আলম সুজন আমাদের সময়কে বলেন, বড় জাহাজ জেটিতে ভিড়ানোর ব্যাপারে আলোচনা করার জন্য। তিনি আমাদের আশ্বস্ত করেছেন বড় জাহাজ ভিড়ানোর শর্তগুলো শিথিল করতে আলোচনা করা হবে। বড় জাহাজ বন্দর জেটিতে ভিড়লে সবাই উপকৃত হবে। তিনি আরও বলেন, ঈদের ছুটিতে কাজ করতে শিপিং অফিস ও ফ্রেইট ফরওয়ার্ডার্সদের সব অফিস খোলা রেখে কাজ করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দরকে সহযোগিতা করতে যে কোনো সময় আমদানি-রপ্তানি সংক্রান্ত কাজ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা হয়েছে।

জানা গেছে, বৈঠকে ঈদের ছুটিতে বন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করার সিদ্ধান্ত হয়। প্রতিটি কন্টেইনারে পর্যাপ্ত লক সিস্টেম নিশ্চিত করতে বন্দরের নিরাপত্তা শাখাকে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। এছাড়া, ব্যাংকিং কার্যক্রমের জন্য বন্দরের অভ্যন্তরে থাকা ওয়ান স্টপ সার্ভিসে অবস্থিত ব্যাংকের বুথসমূহ খোলা থাকবে।

চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব মো. ওমর ফারুক আমাদের সময়কে বলেন, কেবল নামাজের বিরতির জন্য ৮ ঘণ্টা কাজ বন্ধ থাকবে। বাকি সময় পুরোদমে অপারেশনাল এবং খালাসের কাজ চলবে। এজন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে নির্দেশনা দেওয়া

.হয়েছে।

বাংলাদেশ ইনল্যান্ড কন্টেইনার ডিপোটস অ্যাসোসিয়েশনের সচিব মো. রহুল আমিন শিকদার বলেন, বন্দরের নির্দেশনা অনুযায়ী সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। ঈদের দিন ৮ ঘণ্টা ছাড়া পুরো ছুটি কাজ চলবে। কর্মকর্তা-কর্মচারীর পাশাপাশি প্রয়োজনীয় সংখ্যক শ্রমিক কাজ করবে। আমদানি-রপ্তানিকারকরা চাইলে ছুটিতে সহজেই পণ্য আনা-নেওয়া করতে পারবেন। কারণ ছুটিতে সড়ক ফাঁকা থাকে। ফলে দ্রুততম সময়ের মধ্যে বন্দর থেকে পণ্য নিয়ে যেতে পারবে। আবার রপ্তানি পণ্য পাঠাতে পারবে।

advertisement