advertisement
DARAZ
advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

ঈদের পরদিনই পরিচ্ছন্ন রাজশাহী-ময়মনসিংহ

রাজশাহী ব্যুরো ও নিজস্ব প্রতিবেদ, ময়মনসিংহ
২৪ জুলাই ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৩ জুলাই ২০২১ ১১:০৯ পিএম
advertisement

পবিত্র ঈদুল আজহার দিন রাতের মধ্যে কোরবানির সব বর্জ্য অপসারণ করেছে রাজশাহী ও ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন।

গতবারের মতো এবারও দ্রুত সময়ে কোরবানির বর্জ্য অপসারণে রেকর্ড করে রাজশাহী সিটি করপোরেশন (রাসিক)। ফলে ঈদের পরদিনই পরিচ্ছন্ন নগরী পেলেন মহানগরবাসী। বর্জ্য অপসারণে সহযোগিতা করায় নগরবাসীকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এর আগে ঈদের দিন বুধবার বিকালে নগরীর পদ্মাপাড়ে বড়কুঠি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশনে কোরবানির বর্জ্য অপসরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন তিনি।

রাসিকের প্রধান পরিচ্ছন্নতা কর্মকর্তা শেখ মো. মামুন জানান, সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের দিকনির্দেশনায় ঈদের দিন রাতের মধ্যেই নগরীতে কোরবানির সব বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে। নগরীর ৩০টি ওয়ার্ডে পশু কোরবানির জন্য এ বছর মোট ২১০টি পয়েন্ট করে দেওয়া হলেও ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা যত্রতত্র কোরবানি করেছেন। সেই বর্জ্য অপসারণে সকাল ১০টা থেকে কাজ শুরু করেন নগরীর পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা। রাত ৩টার মধ্যে সব বর্জ্য অপসারণ করা হয়। পশু কোরবানির স্থানগুলো পানি দিয়ে পরিষ্কার করা এবং ব্লিচিং পাউডার ছিটানো হয়েছে। মেয়রের কথা অনুযায়ী এবারও ঈদের পরদিনই নগরবাসীকে পরিচ্ছন্ন শহর উপহার দেওয়া সম্ভব হয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে ঈদুল আজহার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির পশু ও পশুহাটের বর্জ্য অপসারণের মাধ্যমে নাগরিকদের কাছে দেওয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেন ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের (মসিক) মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু। এতে মেয়র টিটুকে অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা।

২২ জুলাই দুপুরের আগেই সব বর্জ্য অপসারণ করে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ। সিটি করপোরেশনের ৬০০ পরিচ্ছন্নতাকর্মী, ছোট-বড় ৫০টি গাড়ি, ৩টি লোডার ও এক্সকাভেটর, জীবাণুনাশক পানি ছিটানোর ৬টি গাড়ির মাধ্যমে নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ডের ৪০১ পশু কোরবানির পয়েন্ট থেকে প্রায় ১৩০ টন বর্জ্য এবং ও ১০টি পশুহাট থেকে প্রায় ২০ টন বর্জ্য অপসারণ করা হয়।

এ প্রসঙ্গে মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু বলেন, কোরবানির পশুর বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় গত কয়েক বছরের মতো এ বছরও সফলতা এসেছে। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির মধ্যেও সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের নিরলস এবং নিরবচ্ছিন্ন পরিশ্রমে ২৪ ঘণ্টা পূর্ণ হওয়ার আগেই বর্জ্য অপসারণ করা সম্ভব হয়েছে। এক্ষেত্রে নাগরিকদের সহযোগিতার জন্য এবং পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের নিবেদিত কর্মের জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন মেয়র। যথাসময়ে বর্জ্য অপানরণে মেয়রের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন পরিবেশ রক্ষা উন্নয়ন আন্দোলন সভাপতি অধ্যক্ষ লে. কর্নেল (অব) ড. শাহাব উদ্দীন, ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার নূরুল আমীন কালাম, বাংলাদেশ প্রাইভেট ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনেস্টিক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন ময়মনসিংহ জেলার সভাপতি বিশিষ্ট চক্ষু বিশেষজ্ঞ লায়ন ডা. হরিশংকর দাশ, সম্পাদক ডা. এইচএ গোলন্দাজ তারা, ময়মনসিংহ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সিনিয়র সভাপতি শংকর সাহা, ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এফএমএ সালাম ও সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম।

advertisement