advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

চিকিৎসক ঈশিতা ৬ দিনের রিমান্ডে

আদালত প্রতিবেদক
২ আগস্ট ২০২১ ০৫:৪৪ পিএম | আপডেট: ২ আগস্ট ২০২১ ০৮:৫৫ পিএম
চিকিৎসক ইশরাত রফিক ঈশিতা
advertisement

ভুয়া বিশেষজ্ঞ ডিগ্রীধারি সেই প্রতারক চিকিৎসক ইশরাত রফিক ঈশিতা ও তার সহযোগী শহিদুল ইসলাম দিদারের ছয় দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। প্রতারণা ও মাদক আইনের দুটি মামলায় আজ সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম আশেক ইমাম এ রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওই দুই আসামিকে আদালতে হাজির করে উভয় মানলায় ৫ দিন করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।

এর আগে গত ১ আগস্ট সকালে মিরপুর ১ নম্বর থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ডা. ঈশিতা ও তার সহযোগীকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-৪। গ্রেপ্তারের পর তার বাসা থেকে ভুয়া আইডি ও ভিজিটিং কার্ড, ভুয়া সিল, সনদ, প্রত্যয়নপত্র, পাসপোর্ট, ল্যাপটপ, ইয়াবা, বিদেশি মদ ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল পদের দুটি ইউনিফর্ম, র‌্যাঙ্ক ব্যাজ উদ্ধার করা হয়।

৩৪ বছর বয়সী ঈশিতা প্রতারণা করার জন্য সেনাবাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল, ইন্টারন্যাশনাল ইন্সপিরেশনাল ওমেন অ্যাওয়ার্ড, বছরের সেরা নারী বিজ্ঞানী, সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে রিসার্চ অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড, ভারতের টেস্ট জেম অ্যাওয়ার্ড, থাইল্যান্ডের আউটস্ট্যান্ডিং সায়েন্টিস্ট অ্যান্ড রিসার্চার অ্যাওয়ার্ডসহ জাতীয় আন্তর্জাতিক অনেক পুরস্কার ও সম্মাননা ব্যাবহার করতেন।

র‌্যাব জানায়, ঈশিতা ময়মনসিংহের একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ২০১৩ সালে এমবিবিএস সম্পন্ন করেন। এরপর ২০১৪ সালের প্রথম দিকে মিরপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক হিসেবে যোগ দেন। এ ছাড়া একটি সরকারি হাসপাতালেও চুক্তিভিত্তিতে কাজ করতেন তিনি। তবে চাকরিতে যোগ দেওয়ার চার মাস পরই অনৈতিক কাজের অভিযোগে তাকে বরখাস্ত করা হয়। মূলত উচ্চাকাঙ্ক্ষা থেকেই ঈশিতা প্রতারণা শুরু করেন। করোনাকালীন তিনি বিভিন্ন চিকিৎসকদের প্রশিক্ষণ দিয়ে অর্থ আত্মসাৎ করেছেন।

তিনি নিজেকে চিকিৎসা বিজ্ঞানী, গবেষক, বিশিষ্ট আলোচক, কূটনীতিক, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, পিএইচডি হোল্ডারসহ বিভিন্ন পরিচয় দিতেন। বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি ছাড়া চিকিৎসা শাস্ত্রে তার উচ্চতর কোনো ডিগ্রি নেই। কিন্তু নামের পাশে চিকিৎসা শাস্ত্রের সব উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনের ট্যাগ বসিয়ে নিয়েছিলেন নিজেই।

২০২০ সালে ঈশিতা ভারতের উত্তর প্রদেশে হোটেল পার্ক অ্যাসেন্টে অনুষ্ঠিত জিআইএসআর ফাউন্ডেশনের প্রদত্ত ইন্টারন্যাশনাল ইন্সপিরেশনাল ওমেন অ্যাওয়ার্ড (আইআইডবিউ ২০২০) পেয়েছেন বলে প্রচার করেন, যা ৩৫ বছর বয়সী চিকিৎসা বিজ্ঞানী ও গবেষকদের মধ্যে ‘বছরের সেরা নারী বিজ্ঞানী’ পুরস্কার হিসেবে বিবেচিত। এ ছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাতে ‘রিসার্চ অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ ভারতের ‘টেস্ট জেম অ্যাওয়ার্ড ২০২০’ থাইল্যান্ডে আন্তর্জাতিক শিক্ষা সম্মেলনে অংশ নিয়ে ‘আউটস্ট্যান্ডিং সায়েন্টিস্ট অ্যান্ড রিসার্চার অ্যাওয়ার্ড’ ইত্যাদি পেয়েছেন বলেও দাবি তার। তবে এর সবই ভুয়া। এসব অনুষ্ঠানের ছবি এডিট করে নিজের ছবি বসিয়ে দিতেন। শুধু তাই নয় তিনি প্রতারণার মাধ্যমে ভুয়া নথি উপস্থাপন করে ২০১৮ সালে জার্মানিতে ‘লিন্ডা ও নোবেল লরিয়েট মিট-মেডিসিনে’ অংশ নেন। পরে ঈশিতা প্রচার চালান যে, তিনি প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ওই অনুষ্ঠানে যোগ দেন। তবে ওই অনুষ্ঠানে তিনি কোনো পুরস্কার পাননি, সেখানে গিয়ে ছবি তুলেছেন।

র‌্যাব আরও জানায়, ঈশিতা ৬০-৬৫টি দেশ ভ্রমণ করেছেন বলে দাবি করেন, তবে তিনি শুধু জার্মানিতে গিয়েছিলেন। অ্যাম্বাসেডর হিসেবে আমেরিকান সেক্সুয়াল হেলথ অ্যাসোসিয়েশন, ন্যাশনাল সার্ভিক্যাল ক্যানসার কোয়ালিশনে কাজ করছেন বলেও দাবি করতেন তিনি। তবে এগুলোর সবই ভুয়া। ঈশিতা ‘ইয়াং ওয়ার্ল্ড লিডারস ফর হিউম্যানিটি’ নামে একটি অনিবন্ধনকৃত ও অননুমোদিত সংগঠন পরিচালনার সঙ্গেও যুক্ত। অনলাইন প্ল্যাটফরমে যার ফেসবুক পেজ ও লিংকইন আইডি রয়েছে। সংস্থাটির সদর দপ্তর নিউইয়র্কে অবস্থিত বলে প্রচার করা হয়েছে। বর্ণিত ফেসবুক পেজের কো-অ্যাডমিন ঈশিতা। এ ফেসবুক পেজের মাধ্যমে দেশ ও আন্তর্জাতিক পরিম-লে প্রতারণার নেটওয়ার্ক তৈরি করা হয়েছিল।

এরই মধ্যে নেপাল, পাকিস্তান, আফগানিস্তান, ভারত, বুরুন্ডি, আমেরিকা, নাইজেরিয়া, ওমান, সৌদি আরব ইত্যাদি দেশে অর্থের বিনিময়ে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ওই দেশগুলোতে এ সংগঠনের ব্যানারে সেমিনার, অ্যাওয়ার্ড প্রদান ও প্রশিক্ষণ ইত্যাদি আয়োজন করা হয়ে থাকে। যেখানে অর্থের বিনিময়ে বিভিন্ন ব্যক্তিদের অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। ভুয়া অ্যাওয়ার্ড বিতরণের বিনিময়ে অর্জিত অর্থের সিংহভাগ ঢুকত ঈশিতা ও তার প্রধান সহযোগী দিদারের পকেটে। ইতোমধ্যে বুরুন্ডি ও আফগানিস্তানে এ ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে। এ ছাড়া সংগঠনের ব্যানারে ২০১৯ সালের এপ্রিলে রাজধানীর একটি অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ৩০ বাংলাদেশিকেও ‘ইয়াং ওয়ার্ল্ড লিডার্স ফর হিউম্যানিটি’ সম্মাননা জানানো হয়। ওই অনুষ্ঠানে ঈশিতা সঞ্চালকের ভূমিকাও পালন করেন।  

advertisement