advertisement
DARAZ
advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

চবিতে গবেষণা
ফগার মেশিনে মরে না মশা

চট্টগ্রাম ব্যুরো
৪ আগস্ট ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ৩ আগস্ট ২০২১ ১০:৩১ পিএম
advertisement

গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ব্যবহার করে আসা ফগার মেশিন দিয়ে মশা খুব একটা মরে না। বরং তার আগে ব্যবহৃত ডিজেল ও কেরোসিনের মিশ্রণের সঙ্গে লার্ভিসাইড (মশার ডিম নষ্ট করার ওষুধ) সঙ্গে মিশিয়ে স্প্রে করলে মশা দ্রুত মারা যাবে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) একদল গবেষক গতকাল মঙ্গলবার এমন তথ্য জানিয়েছেন। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরীর অনুরোধে চবির শিক্ষকরা এ গবেষণার কাজ চালান। গতকাল মঙ্গলবার সকালে চসিকের সম্মেলনকক্ষে মশার ওষুধের কার্যকারিতা বিষয়ে ওই গবেষণা

প্রতিবেদন মেয়রের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

ওই অনুষ্ঠানে আজ বুধবার সকালে নগরীর দুই নম্বর গেট বিপ্লব উদ্যানে মশক নিধনে ক্রাশ প্রোগ্রাম শুরু করা হবে বলে জানান মেয়র। তিনি বলেন, প্রতিদিন ৪টি ওয়ার্ডে ক্রাশ প্রোগ্রাম চলবে। একসঙ্গে ১০০ মশক নিধনকর্মী কাজ করবে। ১০ দিনে সব ওয়ার্ড শেষ করা হবে। ৪১টি ওয়ার্ডে চলবে এ কার্যক্রম।

জানা যায়, গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়- লার্ভিসাইডের (মশার ডিম নষ্ট করার ওষুধ) সঙ্গে ডিজেল মিশিয়ে স্প্রে করলে মশা দ্রুত মারা যাবে। চসিকের পর্যাপ্ত লার্ভিসাইড ওষুধ ও কালো তেল রয়েছে। গবেষণা প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে নতুন এডাল্টিসাইড (উড়ন্ত মশা মারা ওষুধ) কেনা হবে। ইতোমধ্যে নতুন করে ১০টি টু স্ট্রোক লার্ভিসাইড ওষুধ ছিটানোর মেশিন কিনেছে চসিক।

চট্টগ্রামে ডেঙ্গুতে দুই মহিলা মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৭ জন। ডেঙ্গুর ভয়াবহতার কথা উল্লেখ করে মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, দেড় হাজার সেচ্ছাসেবক নিয়োগ দিয়েছি। তারা ঘরে ঘরে গিয়ে জনগণকে সচেতন করবে। ছাদ বাগানের টবে জমে থাকা পানি ফেলে দেবেন। এর বাইরে মাইকিং, লিফলেট, স্বেচ্ছাসেবীর কাজ চলছে। ৪১ ওয়ার্ডের কাউন্সিলররা খুব সজাগ রয়েছেন। তারা স্ব উদ্যোগে কাজে নেমেছেন। আমরা এ মুহূর্তে তিন শত্রুর সঙ্গে যুদ্ধ করছি- কোভিড, ডেঙ্গু ও চিকনগুনিয়া।

চবির গবেষণা প্রসঙ্গে মেয়র বলেন, ফগার মেশিন দিয়ে এত ওষুধ ছিটানোর পর চট্টগ্রামের নাগরিকরা বলেন, মশার কামড়ে অতিষ্ঠ। এর পর চিন্তা করলাম ওষুধের কার্যকারিতা নির্ণয়ের। চবি উপাচার্যকে অনুরোধ জানাই, মশার ওষুধ নিয়ে গবেষণার জন্য। আজ সেই কাজের প্রতিবেদন সবার সামনে উপস্থাপিত হলো।

মেয়র আরও বলেন, একটি স্প্রে মেশিনের চেয়ে ১০০ গুণ বেশি দাম ফগার মেশিনের। এ মেশিনের পরিবর্তে যে স্প্রে মেশিন ব্যবহার করতাম তা নিয়ে এগিয়ে গেলে অনেক বেশি সুফল পাব। স্প্রে মেশিন সবচেয়ে উপযোগী বলে মনে করি। ফগার মেশিন দিয়ে যে ওষুধ ছিটানো হয় তার কার্যকারিতা নগণ্য। লার্ভিসাইড এডাল্টিসাইড মেশিন দিয়ে ওষুধ স্প্রে করলে বেশি সুফল পাওয়া যাবে।

চসিকের সম্মেলনকক্ষে মশার ওষুধের কার্যকারিতা নিয়ে চবি গবেষক দলের প্রতিবেদন হস্তান্তর উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহীদুল আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন চবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার। এ সময় গবেষক দলের সদস্য, কাউন্সিলর ও চসিকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

advertisement