advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

ইমরান খানও পারলেন না

ক্রীড়া ডেস্ক
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১০:১৮ পিএম
advertisement

এ সিরিজের বিষয়ে আশ্বস্ত করতে পারেননি স্বয়ং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্নের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন ইমরান খান। এ সময় তিনি আশ্বস্ত করেন, বিশ্বের অন্যতম সেরা নিরাপত্তা আছে পাকিস্তানের, সফরকারী দলের জন্য কোনো কিছুর শঙ্কাই নেই। কিন্তু তাতে মন গলেনি নিউজিল্যান্ডের। শেষ পর্যন্ত পাকিস্তান সফর বাতিলই করেছে দলটি।

সফর বাতিলের প্রসঙ্গে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড এক বিবৃতিতে বলেছে, ?‘পাকিস্তানে থাকা অবস্থায় নিউজিল্যান্ডের ওপর হুমকি এসেছে এবং নিরাপত্তাজনিত কারণে আমরা সিরিজটি স্থগিত করে দেশে ফিরে যাচ্ছি। আমাদের নিরাপত্তা উপদেষ্টা জানিয়েছে ব্ল্যাক ক্যাপসরা এ সিরিজটি আর খেলবে না।’

তবে এর আগে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হয়েছে সিরিজটা মাঠে গড়ানোর। সিরিজ শুরুর ঠিক আগ মুহূর্তে নিউজিল্যান্ডের এমন সিদ্ধান্তে বিস্মিত হয়েছে পিসিবি। পিসিবির পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সফরকারী দলের জন্য সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা দিয়ে থাকে পাকিস্তান। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের জন্যও সে ব্যবস্থাই রেখেছি। প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন এবং জানিয়েছেন, আমাদের গোয়েন্দা বিভাগ বিশ্বের অন্যতম সেরা। সফরকারী দলের জন্য কোনো ধরনের নিরাপত্তা শঙ্কা নেই।’?

নিরাপত্তাজনিত কোনো হুমকি নিউজিল্যান্ডকে দেওয়া হয়েছে এমন তথ্য তাদের কাছে নেই বলে জানিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। তারা জানায়, ‘পিসিবি ও পাকিস্তান সরকার প্রতিটা সফরকারী দলের জন্যই পূর্ণ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডকেও আমরা একই নিরাপত্তা দিয়েছি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী নিজে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে জানানো হয়েছে, বিশ্বের অন্যতম সেরা গোয়েন্দা সংস্থা পাকিস্তানের আছে। সফরকারী দলের ওপর কোনো হুমকি নেই।’

হঠাৎ করেই নিউজিল্যান্ড সফর বাতিলের সিদ্বান্ত নিয়েছে বলে জানায় পিসিবি। তারা আরও বলে, ‘নিউজিল্যান্ড দলের সঙ্গে থাকা নিরাপত্তা কর্মকর্তারা পুরোটা সময় পাকিস্তান সরকারের দেওয়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে সন্তুষ্ট ছিলেন। তবে হঠাৎ করে নিউজিল্যান্ডের এমন সিদ্ধান্তে হতাশ পিসিবি।’

এত আয়োজনের পরও হুট করে সিরিজ না খেলা পিসিবির জন্য বড় ক্ষতি, বুঝতে পারছেন নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী ডেভিড হোয়াইট। তিনি বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি আয়োজক হিসেবে এটা পিসিবির জন্য বড় একটি ধাক্কা। তবে খেলোয়াড়দের নিরাপত্তা সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ এবং সিরিজ বাতিল করাই একমাত্র বিকল্প পথ বলে আমরা বিশ্বাস করি।’

দলের পাকিস্তান সফর বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান নির্বাহী হিথ মিলস। তিনি বলেন, ‘এ সফরের পুরো প্রক্রিয়ায় আমরা ছিলাম এবং এ সিদ্ধান্তকে সম্পূর্ণ সমর্থন করছি। ক্রিকেটাররা নিরাপদ। সবাই তাদের জন্য কাজ করছে।’ দীর্ঘ ১৮ বছর পর সফরে আসে নিউজিল্যান্ড। ২০০২ সালে পাকিস্তান সফরে করাচিতে নিউজিল্যান্ড টিম হোটেলের বাইরে বোমা বিস্ফোরণের কারণে মাঝপথেই পাকিস্তান সফর শেষ করেছিল কিউইরা। ঐ সফরে এক ম্যাচের টেস্ট সিরিজ হেরেছিল নিউজিল্যান্ড।

সফরে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজও খেলার কথা ছিল নিউজিল্যান্ডের। পরে ২০০৩ সালে ঐ সফরের বাকি পাঁচ ওয়ানডে খেলতে আবারও পাকিস্তানে যায় নিউজিল্যান্ড। আর সেটিই ছিল কিউইদের সর্বশেষ পাকিস্তান সফর। এর পর আর পাকিস্তান সফরে যাওয়া হয়নি নিউজিল্যান্ডের। কারণ ২০০৯ সালে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামের কাছে সফররত শ্রীলংকা দল বহনকারী বাসে জঙ্গি হামলা হয়। সেই হামলার পর আন্তর্জাতিক দলগুলো পাকিস্তান সফরে অস্বীকৃতি জানায়। এর পর বাধ্য হয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিজেদের হোম ভেন্যু বানাতে বাধ্য হয় পাকিস্তান।

নিউজিল্যান্ডের এমন সিদ্ধান্তে বড় ধরনের ধাক্কা পিসিবির। নিউজিল্যান্ডের পর ইংল্যান্ডের পাকিস্তান সফর করার কথা ছিল। এখন সেটিও অনিশ্চয়তার মুখে পড়বে বলে ধারণা করছে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা।

advertisement
advertisement