advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

ছবি তোলা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০, গ্রেপ্তার ১

হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১১:৫৯ পিএম
advertisement

বিয়ে বাড়িতে উৎসবের আমেজ। মেয়ের গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে লাউড স্পিকারে গান বাজানো এবং ছবি তোলা নিয়ে শুরু হয় তর্কবিতর্ক। এর জের ধরে হাতাহাতি। পরে দুুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে রূপ নেয়। এতে কয়েকজন গুলিবিদ্ধসহ দুই গ্রামের অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। শনিবার ও গতকাল রবিবার সকালে কুমিল্লার হোমনা উপজেলার ঘারমোড়া ইউনিয়নের বাড় ঘারমোড়া এবং ফুজুরকান্দি গ্রামের মধ্যে দুই দফায় এ সংঘর্ষ হয়। ঘারমোড়া গ্রামের মারাত্মক আহত তিনজনকে ঢাকা এবং কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাকিরা হোমনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ও প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। এডিশনাল পুলিশ সুপার এম তানভির ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

হোমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কায়েস আকন্দ জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় একটি মামলা হলে একজন গ্রেপ্তার হয়েছে। এরই জেরে রবিবার আবারও সংঘর্ষ হয়। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

আহতরা হলেন ঘারমোড়া গ্রামের রাজিব, আসাব উদ্দিন, আলম প্রকাশ কেট্টা, আজগর আলী, রাজিব, জিলানী, অজিত, ইকরাম, ইকবাল, শাহ অলম, কবির, নজরুল ও ফুজুর কান্দি গ্রামের শুভ, তানভির ও আরিফ। আরও কয়েকজন চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন জায়গায় চলে গেছেন। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বড় ঘারমোড়া গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের বাকপ্রতিবন্ধী মেয়ের বিয়ে ঠিক হয় উপজেলার বাগমারা গ্রামের এক ছেলের সঙ্গে। শুক্রবার বিয়ে এবং গত বৃহস্পতিবার ছিল মেয়ের গায়ে হলুদ। এ উপলক্ষে কনে বাড়িতে গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানে ডিজে মিউজিকের আয়োজন করা হয়। রাত এগারোটার দিকে পাশর্^বর্তী ফজুর কান্দি গ্রামের রাসেল, খোকন, বকুলসহ ৮-৯ জন ছেলে মিউজিক বাজালে চাঁদা দাবি করে এবং মেয়েদের ছবি উঠাতে থাকে। এ সময় বড় ঘারমোড়া গ্রামের কয়জন ছেলে তাদের বাধা দেয়। এতে ওই ছেলেরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের স্পিকার বাজানো বন্ধ করে দেয়। এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। এর জের ধরে গত শনিবার সকালে বড় ঘারমোড়া গ্রামের মো. সাব মিয়া বাজারে দুধ বিক্রি করতে গেলে ফজুর কান্দি গ্রামের লোকজন তার দুধ ফেলে দিয়ে মারধর করে।

এ ঘটনায় জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে ফজুর কান্দি গ্রামের সাতজনের নাম উল্লেখসহ ২২ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে হোমনা থানায় একটি মামলা করেন। ফজুরকান্দি গ্রামের ফারুক আহমেদ বকুল নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে দুই গ্রামের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করে। রবিবার সকাল সাতটার দিকে দুই গ্রামের লোকজন ঘারমোড়া বাজারে আবারও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে ২০ জন আহত হয়। ঘারমোড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান মোল্লা জানান, বৃহস্পতিবার বিয়ে বাড়িতে ছবি তোলা নিয়ে ছেলেদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে গত শনিবার একজনকে মারার ঘটনায় থানায় মামলা হলে একজন গ্রেপ্তার হয়। বিষয়টি মিটমাট করার জন্য বসার কথা ছিল। কিন্ত এরই মধ্যেই ফজুরকান্দি ও বড় ঘারমোড়া গ্রামবাসী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

advertisement
advertisement