advertisement
DARAZ
advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

জামাইকে গাছে বেঁধে নির্যাতন, শাশুড়ি আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৬:৪৯ পিএম | আপডেট: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৯:১৫ পিএম
সংগৃহীত ছবি
advertisement

ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈলে মেয়ে জামাইকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করার অভিযোগে শাশুড়িকে আটক করেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার বেলা একটার দিকে মেয়ের মা শিরিনা আক্তারকে আটক করে পুলিশ।

জানা গেছে, উপজেলার ভাংবাড়ি মধ্যপাড়া গ্রামের নাসিরুল ইসলামের (২২) সঙ্গে একই গ্রামের এক কিশোরীর (১৫) ফেসবুকে পরিচয় হয়। সেই পরিচয় থেকে প্রথমে প্রেম, তারপর পালিয়ে বিয়ে। কিন্তু এ বিয়ে কিছুতেই মেনে নিতে পারেনি মেয়েপক্ষ। কিন্তু বিয়ে মেনে নেওয়ার আশ্বাসে কৌশলে মেয়েকে বাড়িতে ফেরত আনে মেয়ের পরিবার।

এরপর গত সোমবার নাসিরুল শ্বশুরবাড়ি গেলে তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করেন মেয়ের স্বজনেরা। ওই দিন বিকেলে ওই তরুণকে নির্যাতন করা হলেও নির্যাতনের একটি ভিডিও গতকাল বৃহস্পতিবার সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। ফলে, নির্যাতনে জড়িত থাকার অভিযোগে আজ শুক্রবার মেয়ের মা শিরিনা আক্তারকে আটক করে পুলিশ।

মোহাম্মদ রাসেল নামের স্থানীয় এক যুবক বলেন, নাসিরুলকে এক থেকে দেড় ঘণ্টা ধরে লাঠিপেটা করা হয়। এ সময় তার পেট, বুক, গোপনাঙ্গে লাত্থি দেওয়াসহ বিভিন্নভাবে নির্যাতন করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নাসিরুলকে উদ্ধার করে রানীশংকৈল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নাসিরুল এখনো সেখানে চিকিৎসাধীন।

নাসিরুলের মা নাসিমা খাতুন বলেন, ছেলেকে কীভাবে মেরেছে, তা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। তার প্রস্রাবের রাস্তা দিয়ে এখনো রক্ত যাচ্ছে।

এদিকে শিরিনা আক্তারকে আটকের সময় তিনি বলেন, তার মেয়ে অনেক ছোট। নাসিরুল তাকে ফুসলিয়ে নিয়ে গিয়েছিল। এ কারণে নাসিরুলকে মারধর করা হয়েছে।

রানীশংকৈল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম জাহিদ ইকবাল বলেন, গত সোমবার বিকেলে ঘটনার খবর পেয়ে নাসিরুলকে সেখান থেকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ফেসবুকে নির্যাতনের ভিডিও দেখে আজ ওই নারীকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

advertisement