advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

রোনালদোর সাবেক সতীর্থ এখন দুধ বিক্রেতা!

স্পোর্টস ডেস্ক
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৬:১৭ পিএম | আপডেট: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৭:৪৪ পিএম
ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর সাবেক ম্যান ইউ সতীর্থ রিচার্ড একের্সলি। ছবি: সংগৃহীত
advertisement

ফুটবল মানেই উত্তেজনা। শেষ পর্যন্ত কি হবে বলা মুশকিল। এটাতো গেল মাঠের ভেতরের কথা। মাঠের বাইরের কথা কি বলা যায়, শেষ টা কি হবে? ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর সাবেক ম্যান ইউ সতীর্থ রিচার্ড একের্সলি। ২০০৯ সালে রোনালদো দলবদলের রেকর্ড গড়ে যখন ইউইনাইটেডে গিয়েছিলেন, প্রায় একইসঙ্গে একের্সলিও সুযোগ পান। রোনালদো এখন কিংবদন্তি, আর একের্সলি দুধের ব্যবসায়ী!

একের্সলি ছিলেন রোনালদোর বড় ভক্ত। তিনি চাইতেন রোনালদোর মতো হতে। মাঠে দুজনের অবস্থান ছিল ভিন্ন। রোনালদো খেলতেন লেফট উইংয়ে আর একের্সলি খেলতেন রাইটব্যাকে। কিন্তু ইউনাইটেডে বেশি দিন থাকা হয়নি একের্সলির। বেশি বেতনের লোভে যান তৃতীয় সারির ক্লাব বার্নলিতে। এরপর চোট, ফর্মহীনতা মিলে তার ক্যারিয়ার শেষ হয়ে যায়। ৩২ বছর বয়সী একের্সলি এখনও স্বীকার করেন, টাকার লোভে ছোটখাট ক্লাবে যাওয়া উচিত হয়নি।

স্প্যানিশ লিগে দল হারিয়ে তিন বছর যুক্তরাষ্ট্রের মেজর সকার লিগে খেলেছেন। ২০১৬ সাল থেকে শুরু করেন দুধের ব্যবসা। ফুটবল ছেড়ে নাকি এখন তিনি খুব শান্তিতে আছেন। ইংল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চলে ডেভনে সমুদ্রের তীরে ছোট্ট একটা স্থান টটনেসকে বেছে নিয়েছেন থাকার জন্য। সেখানে সবাই নিরামিষভোজী এবং দুধ উৎপাদনের প্রক্রিয়া শতভাগ জৈবিক। একের্সলির খামারে প্রতি মাসে ২৫ হাজার লিটার দুধ উৎপাদন হয়। সবকিছুই পুনরায় ব্যবহার করা হয়।

‘দ্য অ্যাথলেটিক’কে একের্সলি বলেছেন, ‘আমি আসলেই সুখে আছি। নিজের নিয়তি আমার হাতে এবং আমার কাছে এটাই অমূল্য। সমুদ্রতীরের কাছে, জলাভূমি আছে, নদী আছে, সেখানে আমার মেয়েরা বড় হবে। আমরা এমন এক সমাজে আছি, যেখানে ৪০ জন মানুষ আছেন। আমাদের নিজের বাড়ি আছে, বাগান আছে। ১০ একর জমি আমরা ভাগাভাগি করে ব্যবহার করি, নিজেদের খাবার নিজেরা উৎপাদন করি। এ গ্রামে কোনো রাস্তা নেই। এটা দারুণ। এখানে নৈতিকতাই মূল কথা।’

advertisement