advertisement
DARAZ
advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

পুলিশের ওপর হামলা
জবির ৪ শিক্ষার্থীসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি ৩০ নভেম্বর

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৪ অক্টোবর ২০২১ ১২:১১ পিএম | আপডেট: ১৪ অক্টোবর ২০২১ ১২:১৯ পিএম
প্রতীকী ছবি
advertisement

রাজধানীর সূত্রাপুর থানা পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় হওয়া মামলায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) চার শিক্ষার্থীসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য আগামী ৩০ নভেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত। ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর হাকিম হাসিবুল হকের আদালতে এই অভিযোগ গঠন শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। আজ বৃহস্পতিবার সংশ্লিষ্ট আদালত সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ মামলার আসামিরা হলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞানের সাদিক হৃদয়, নৃবিজ্ঞান বিভাগের মেহেদী হাসান ওরফে সিফাত, সাজেদুল ইসলাম ওরফে নাঈম, প্রাণিবিদ্যা বিভাগের মো. সোহানুর রহমান ও জনৈক জয় দাস।

গত ৬ মে পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সূত্রাপুর থানার উপপরিদর্শক মো. আবু তালেব। অভিযোগপত্রে ১৯ জনকে সাক্ষী করা হয়। এর আগে পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে চলতি বছরের ২৯ জানুয়ারি সকালে সূত্রাপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) এজাজ আহমেদ রুমি বাদী হয়ে পাঁচজনের নাম উল্লেখ এবং আরও অজ্ঞাত ২৫-৩০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন সূত্রাপুর থানায়।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০২১ সালের ২৮ জানুয়ারি রাতে পুরান ঢাকার কবি নজরুল সরকারি কলেজের সামনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় শিক্ষার্থী আগের ঘটনার জের ধরে সূত্রাপুর থানা ছাত্রলীগ কর্মীদের ওপর আক্রমণের উদ্দেশ্যে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে গাড়ি ও দোকান ভাঙচুর করেন। এ সময় মামলার বাদী ও সূত্রাপুর থানার উপপরিদর্শক এজাজ আহমেদ রুমি ও তার সঙ্গীয় ফোর্স তাদের গাড়ি ও দোকান ভাঙচুর করতে নিষেধ করেন। এরপর তাকেসহ কর্তব্যরত পুলিশের ওপর তারা এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মেরে শরীর বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম করেন।

ওই মামলায় গত ২৯ জানুয়ারি পাঁচ আসামিকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এরপর প্রত্যেক আসামির সাত দিন করে রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সূত্রাপুর থানার এসআই মো. আবু তালেব। এসময় আসামি পক্ষের আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে শুনানি করেন। আদালত রিমান্ড আবেদন বাতিল করে আসামিদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

গত ১ ফেব্রুয়ারি পাঁচ আসামির পক্ষে জামিন চেয়ে আবেদন করেন তাদের আইনজীবী। শুনানি শেষে আদালত প্রত্যেককে এক হাজার টাকা মুচলেকায় জামিন দেন।

advertisement