advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

প্রার্থী হতে গিয়ে দেখেন ভোটার তালিকায় তিনি মৃত

সোনাতলা (বগুড়া) প্রতিনিধি
১৫ অক্টোবর ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৪ অক্টোবর ২০২১ ১০:৩৯ পিএম
advertisement

বগুড়ার সোনাতলা পৌরসভা নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী হওয়ার জন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি ও গণসংযোগ করে আসছেন ৫ নম্বর ওয়ার্ডের আবদুল কাশেম সেখ। জাতীয় পরিচয়পত্রও আছে তার। কিন্তু নির্বাচনের সব প্রস্তুতি যেন নিমিষেই শেষ হয়ে যায় তার। তিনি উপজেলা নির্বাচন অফিসে মনোনয়ন ফরম কিনতে গিয়ে জানতে পারলেন ভোটার তালিকায় তিনি ১১ বছর আগেই মৃত! এ ঘটনায় আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হলেও কোনো সমাধান মেলেনি।

জানা গেছে, আগামী ২ নভেম্বর বগুড়ার সোনাতলা পৌরসভা নির্বাচন। গত ৪ অক্টোবর মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু করে উপজেলা নির্বাচন

অফিস। সেখানে ফরম কিনতে যান ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ও চমরগাছা গ্রামের মৃত আবদুল কুদ্দুসের ছেলে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আবদুল কাশেম শেখ। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের ডাটাবেজে তার নাম খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে তার নাম খুঁজে পাওয়া গেল মৃতদের তালিকায়। ওই তালিকায় তাকে ২০১১ সালে মৃত দেখানো হয়েছে। এ জন্য ওই কাউন্সিলর প্রার্থী এবার নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না বলে জানিয়েছে উপজেলা নির্বাচন অফিস।

উপজেলা নির্বাচন অফিস থেকে জানা গেছে, আবদুল কাশেম সেখের এনআইডি নম্বর দিয়ে কম্পিউটারে সার্চ দিলে নো ডাটা ফাউন্ড লেখা ওঠে। তবে মৃত্যু তালিকায় রয়েছে তার নাম। নির্বাচন অফিসের তথ্যানুযায়ী ২০১১ সালে কোনো এক কারণে ভুল করে তার নাম ঢুকে পড়েছে।

কাউন্সিলর প্রার্থী আবদুল কাশেম সেখ বলেন, বেঁচে থাকতেই আমাকে মৃত্যু বানিয়েছে নির্বাচন অফিস। এ কারণে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও নির্বাচনে অংশ নিতে পারছি না। এখন কত দিনে জীবিত হতে পারব তা নিয়েই ভাবছি।

সোনাতলা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আশরাফ হোসেন বলেন, যে কোনো ভুলের কারণেই এই ঘটনা ঘটেছে। সংশোধনের আবেদন করলে এটির সমাধান হবে। তবে এবারের মতো তিনি ভোট করতে পারবেন না। কারণ দ্রুত সময়ের মধ্যে বর্তমান হালনাগাদ তালিকায় তার নাম ঢুকানো আর সম্ভব নয়।

advertisement