advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

মামলার ভয় দেখিয়ে চিকিৎসকের ৯৫ লাখ টাকা আত্মসাৎ

রাজশাহী ব্যুরো
২০ অক্টোবর ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২০ অক্টোবর ২০২১ ০২:০২ এএম
advertisement

রাজশাহী মহানগরীতে গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ পরিচয়ে মহামান্য হাইকোর্টে দুর্নীতির মামলা দায়েরের ভয় দেখিয়ে এক ডাক্তারের কাছ থেকে ৯৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র। এ ঘটনায় জড়িত দুই প্রতারককে গত সোমবার রাত ২টার দিকে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় নিজ নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করেছে মহানগরীর রাজপাড়া থানা পুলিশ। তারা হলো- রাজশাহী মহানগরীর রাজপাড়া থানার লক্ষ্মীপুর মিঠুর মোড় এলাকার একেএম মোতাহারুল ইসলামের ছেলে মো. তাসফিন আহমেদ ও

মো. ফয়সাল আহমেদ।

নগর পুলিশ সূত্র জানায়, ভুক্তভোগী ডা. মো. আজিজুল হক ওরফে আব্দুল্লাহর স্ত্রীর বড় বোনের ছেলে আসামি মো. তাসফিন আহমেদ ও মো. ফয়সাল আহমেদ। আত্মীয়তার সূত্র ধরে তাসফিন ও ফয়সাল দুজনই ডা. আজিজুল হকের বাড়িতে যাতায়াত করতেন। আত্মীয়তা ও বিশ্বস্ততার সূত্র ধরে ডা. আজিজুল হককে হাইকোর্টের ভুয়া দুর্নীতি দমন মামলার কাগজ ও আয়করের ভুয়া কাগজ দেখান তাসফিন, ফয়সাল ও ফয়সালের ভায়রা (স্ত্রীর ভগ্নিপতি) মো. রুবেল সরকার রাসেল। এ ছাড়া রুবেল নিজেকে ডিবি পুলিশ ও ওয়ারেন্ট অফিসার পরিচয়ে দিয়ে আজিজুল হকের কাছ থেকে চলতি বছর ১৫ জুলাই থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৯৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। টাকা নেওয়ার সময় তারা ডা. আজিজুল হককে জানান, দুর্নীতি দমন ব্যুরো, আয়কর বিভাগ এবং মহামান্য হাইকোর্টের রায়ের বিষয়ে কাগজ বের হতে সময় লাগবে। এ বিষয়ে কাউকে কিছু না জানাতেও বলেন তারা। অন্য কেউ জানলে আজিজুল ও তার পরিবারের বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে বলে ভয় দেখান তারা। পরে ডা. আজিজুল হক খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, মহামান্য হাইকোর্টে দুর্নীতি ও আয়করের মামলার বিষয়টি ভুয়া। আসামিরা যোগসাজশে প্রতারণা করে তার কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। বিষয়টির ব্যাপারে আসামি ফয়সালের কাছে জানতে চাইলে তিনি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন। পরে রাজপাড়া থানায় মামলা করেন ডা. আজিজুল।

মামলার পর পরই রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের বোয়ালিয়া বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার মো. সাজিদ হোসেনের নির্দেশে ও সার্বিক তত্ত্বাবধানে রাজপাড়া থানার ওসি মো. মাজহারুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে আসামিদের অবস্থান শনাক্ত করে গ্রেপ্তার অভিযানে নামেন। পরে নিজ নিজ বাড়ি থেকে সোমবার রাতে এ দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তারা ঘটনার সঙ্গে ডা. আজিজুলের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার কথা স্বীকার করে।

রাজপাড়া থানার ওসি মো. মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা প্রতারণার কথা স্বীকার করেছে। তাদের কাছ থেকে আরও গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। সেগুলো বিশ্লেষণ করা হচ্ছে এবং পলাতক অপর আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে। দুই আসামিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

advertisement
advertisement