advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

উইঘুর আন্দোলন কর্মীর পোর্ট্রেট আঁকলেন ফরাসি শিল্পী

অনলাইন ডেস্ক
২১ অক্টোবর ২০২১ ১১:৪০ পিএম | আপডেট: ২১ অক্টোবর ২০২১ ১১:৪০ পিএম
সংগৃহীত ছবি
advertisement

চীনের জিনজিয়াংয়ে নির্যাতিত মুসলিম সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর দুর্দশার বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ফ্রান্সের মার্সেই শহরের একটি ভবনে উইঘুর সম্প্রদায়ের একজন আন্দোলনকর্মীর প্রতিকৃতি এঁকেছেন এক ফরাসি শিল্পী। যার প্রতিকৃতি আঁকা হয়েছে তিনি তুরসুনয় জিয়াউদুনে। যিনি চীনের কনসেনট্রেশান ক্যাম্পে অন্তরীণ থাকার অভিজ্ঞতা বিশ্ববাসীর কাছে জানিয়েছিলেন। এক প্রতিবেদনে এই খবর জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এএনআই।

প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, রেডিও ফ্রি এশিয়া জানায়- আলোচিত প্রতিকৃতিটি দক্ষিণ ফ্রান্সের প্রধান বন্দর শহর মার্সেইয়ে অবস্থিত দেশটির জাতীয় টেলিকম অপারেটর অরেঞ্জ'র আঞ্চলিক সদর দপ্তরের একটি ভবনের পাশে শোভা পাচ্ছে।

ফ্রান্সের এই শিল্পী ও মানবাধিকার কর্মী মাহন ক্লোক্স রেডিও ফ্রি এশিয়াকে বলেন, ‘চীনে উইঘুরদের ওপর কী চলছে আমি তা জানি। আর তাই আমি প্রত্যাশা করছি এই প্রতিকৃতির মাধ্যমে আমি বিষয়টি অন্যদেরও জানাতে পারবো।’ ক্লোক্সের অধিকাংশ প্রতিকৃতিই তাদের নিয়ে যারা নির্যাতন-নিপীড়ন, জেল-জুলুম সহ্য করেছেন।

ক্লোক্সের নিজের ভাষায়, ‘আমি এমন সব মানুষের প্রতিকৃতি আঁকছি, যারা তাদের স্বাধীনতা, সমতা, ন্যায়বিচার এবং একটি উন্নত বিশ্বের জন্য লড়াই করছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘রাজনৈতিক বা অন্য কোন কারণে নির্যাতিত, কারারুদ্ধ কিংবা প্রতিহিংসার শিকার; তাদের জন্য এটা আমার কর্তব্য (নৈতিক) বলে মনে করি।’

উল্লেখ্য, মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের অনুমান, ২০১৭ সাল থেকে এখন পর্যন্ত চীনের জিনজিয়াং প্রদেশের ডিটেনশন ক্যাম্পে অন্তত ২০ লাখ উইঘুর মুসলিম এবং অন্যান্য জাতিগত সংখ্যালঘুদের বন্দী করেছে চীনের কমিউনিস্ট সরকার। তবে, প্রদেশটিতে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ বরাবরের মতই অস্বীকার করে আসছে চীন। বেইজিংয়ের দাবি, সন্ত্রাসবাদ এবং বিচ্ছিন্নতাবাদ মোকাবিলা করতে শিবিরগুলোতে পুনঃশিক্ষণ কার্যক্রম চালাচ্ছে তারা।

advertisement
advertisement