advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

পিরোজপুরে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা, ঘাতক স্বামী আটক

পিরোজপুর প্রতিনিধি
২২ অক্টোবর ২০২১ ০১:২৯ পিএম | আপডেট: ২২ অক্টোবর ২০২১ ০২:২৯ পিএম
গৃহবধূ তাহমিনাকে কুপিয়ে হত্যা করে স্বামী, ঘটনার পর বাড়িতে জড়ো হয় এলাকাবাসী। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

এনজিও’র ঋণ পরিশোধ করতে না পারায় এবং পারিবারিক বিরোধের জেরে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করেছেন স্বামী। আজ শুক্রবার ভোর রাতের দিকে পিরোজপুর সদর উপজেলার শিকদারমল্লিক ইউনিয়নের জুজখোলা গ্রামের এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত ঘাতক স্বামী সত্তার শেখকে (৫০) পুলিশ আটক করেছে বলে জানিয়েছেন পিরোজপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাঈদুর রহমান। নিহত তাহমিনা বেগম (৪৫) এর লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠনো হয়েছে। আটক সত্তার শেখ (৫০) পিরোজপুর সদর উপজেলার শিকদারমল্লিক ইউনিয়নের জুজখোলা গ্রামের মৃত জোনাব আলী শেখের পুত্র।

নিহত তহমিনার ছেলে রবিউল ইসলাম জানান, তার মায়ের নামে স্থানীয় বিভিন্ন এনজিও ও ব্যক্তিদের কাছ থেকে প্রায় ৫ থেকে ৬ লাখ টাকা সুদে ঋণ নিয়ে ছিলো তার বাবা। এই ঋণ পরিশোধ নিয়ে বিভিন্ন সময় পারিবারিক সমস্যা হতো এবং তার বাবা সত্তার শেখ প্রায় সময়ই তার মা তাহমিনাকে মারধর করতো। গতকাল বৃহস্পতিবার তাদের নিজস্ব একটি অটোরিক্সা তার বাবা বিক্রিয় করার জন্য নিয়ে যায়। তবে পরিবারের অন্যরা তা বিক্রয় না করতে দিয়ে ফিরিয়ে নিয়ে আসে।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় তার বাবা সত্তার তার মাকে সন্ধ্যা থেকেই নানা হুমকি দিয়ে আসছিল। রাত ১২টা পর্যন্ত সন্তানরা মায়ের সাথে কথা বলে পাশেরই অন্য ঘরে ঘুমাতে যায়। পরে সকালে তার বোন সনিয়া ঘরে গিয়ে তার মাকে ডাকলে মায়ের কোন সাড়া না পেয়ে ঘরে তালা মারা দেখতে পায়। পরে স্থানীয় লোকজন ও পরিবারের সদস্যরা ঘরের তালা খুললে তারা মায়ের রক্তাক্ত দেহ খাটের উপর পরে থাকতে দেখে। স্থানীয় লোকজন থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

এ প্রসঙ্গে শিকদারমল্লিক ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান চাঁন জানান, এনজিওর ঋণ পরিশোধের কিস্তি দেওয়া নিয়ে বিভিন্ন সময় তাদের পরিবারের নানান ঝগড়া হতো। মূলত ঋণের টাকা পরিশোধের সমস্যা নিয়েই এ হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে।

এদিকে, পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আ জ মো. মাসুদুজ্জামান জানান, ঘটনার পরপরই কৌশলে ঘাতক স্বামী সত্তার শেখেকে আটক করেছে পুলিশ। লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং এ ঘটনায় মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন।

advertisement
advertisement