advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

পাকিস্তান ক্রিকেট দলের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন

স্পোর্টস ডেস্ক
২৫ নভেম্বর ২০২১ ০২:০৫ পিএম | আপডেট: ২৫ নভেম্বর ২০২১ ০৩:৪৫ পিএম
মিরপুরে অনুশীলন করার সময় মাঠে পাকিস্তানের পতাকা উড়িয়েছিল পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা। পুরোনো ছবি
advertisement

পাকিস্তানের ক্রিকেট টিমের অধিনায়ক মোহাম্মদ বাবর আজম ও কোচ সাকলাইন মোশতাকসহ ২১ জনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন করা হয়েছে। দেশে পাকিস্তানের জাতীয় পতাকা ওড়ানোর অভিযোগে এই মামলা করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আবুবকর সিদ্দিকের আদালতে মামলার আবেদন করেন বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আল মামুন। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে নথি পর্যালোচনা শেষে আদেশ পরে দেবেন বলে জানান।

মামলার অপর আসামিরা হলেন- মনসুর রানা, শাদাব খান, ফখর জামান, আসিফ আলী, হায়দার আলী, হারিস রউফ, হাসান আলী, ইফতেকার আহমেদ, ইমাদ ওয়াসিম, খুশদিল শাহ, মোহাম্মদ নওয়াজ, মোহাম্মদ রিজওয়ান, মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র, সরফরাজ আহমেদ, শাহিন শাহ আফ্রিদি, শোয়েব মালিক, শাহনেওয়াজ দাহানি, ওসমান কাদির ও শহীদ আসলাম।

মামলার বাদী মোহাম্মদ আল মামুন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। মামলায় অভিযোগ থেকে জানা যায়, বাংলাদেশের ক্রিকেট বোর্ডের আতিথেয়তার সুযোগে স্বাগতিক দেশে এসে প্রথম দিনেই পাকিস্তানী ক্রিকেট টিম বিধি-বিধান ও আইন লঙ্ঘন করে উগ্র ও ঔদ্ধত্যপূর্ণভাবে নিজ দেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও উড়িয়ে বাংলাদেশের প্রচলিত আইন ভঙ্গ করেছে।

বিভিন্ন পত্রিকার উদ্ধৃতি দিয়ে অভিযোগে বলা হয়, আসামিরা ক্রীড়া-কসরত প্রদর্শনের নামে অসৎ উদ্দেশ্যে বাংলাদেশে প্রবেশ করে ঢাকার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গত ১৫ নভেম্বর সকাল ১১টার দিকে পাকিস্তানের জাতীয় পতাকা  উড়িয়ে খেলায় লিপ্ত হয়। তাদের এমন ধৃষ্টতামূলক কর্মকান্ড দেশের প্রচলিত আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। তা সত্ত্বেও আসামিরা মাঠে বিদেশী পতাকা  স্থাপন করে  ও উড়িয়ে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা ও জাতীয় সংহতিকে দুর্বল ও ধ্বংসের হীন চেষ্টায় লিপ্ত থেকে দণ্ডনীয় অপরাধ করেছে। তারা স্বেচ্ছায়, স্বজ্ঞানে, বাংলাদেশের স্বাধীনতার সার্বভৌমত্বকে খাটো করার ব্যর্থ প্রত্যয়ে এমন হীন কাজ করেছে বলে মনে করেন বাদী।

এ ঘটনায় আল মামুন শাহবাগ ও মিরপুর মডেল থানায় মামলা করতে যান। থানা কর্তৃপক্ষ মামলা না নিয়ে আদালতে যাওয়ার পরামর্শ দেন। সে মোতাবেক এদিন তিনি আদালতে মামলার আবেদন করেছেন বলে এজাহারে উল্লেখ করেন বাদী।

মামলায় বলা হয়, আসামিরা বিদেশী নাগরিক। যেকোনো সময় বাংলাদেশ ছেড়ে পালাবার সম্ভবনা রয়েছে। তাই  মামলার অভিযোগ আমলে গ্রহণ করে আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা প্রয়োজন।

advertisement
advertisement