advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

টাইগারদের এবার টেস্ট পরীক্ষা

সুসান্ত উৎসব, চট্টগ্রাম থেকে
২৬ নভেম্বর ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৬ নভেম্বর ২০২১ ০২:৩৩ এএম
আজ চট্টগ্রামে শুরু বাংলাদেশ-পাকিস্তানের দুই টেস্ট সিরিজের প্রথমটি। গতকাল অনুশীলনে অধিনায়ক মুমিনুলের সঙ্গে কোচের আলোচনা। ছিলেন খালেদ মাহমুদ সুজনও - বিসিবি
advertisement

রঙিন পোশাকে সময়টা ভালো যাচ্ছে না বাংলাদেশ দলের। বিশ্বকাপে ভরাডুবির পর পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে হার ৩-০ ব্যবধানে- টাইগারদের আত্মবিশ্বাস একদম তলানিতে! তবে আজ শুরু হতে যাওয়া বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজের প্রথম টেস্ট ম্যাচ ঘিরে আশার বেলুন উড়াচ্ছেন মুমিনুল হক। এর পেছনে দুটি কারণ রয়েছে- প্রথমত ফরম্যাট আলাদা। দ্বিতীয়ত দলে থাকা অধিকাংশ খেলোয়াড়ই নিয়মিত টেস্ট খেলে থাকেন। বন্দরনগরী চট্টগ্রামে সাদা পোশাকে আনন্দের উপলক্ষ এনে দিতে পারবেন কি টাইগাররা?

অগ্রহায়ণেও শীতের দেখা নেই। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের আকাশে যেন ‘তালপাকা’ রোদের খেলা! প্রচণ্ড গরমের মধ্যে বিরাম নেই টাইগারদের। শেষ দিনের মতো অনুশীলনে নিজেদের প্রস্তুত করে নিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন মুমিনুল-মুশফিকরা। মাঠের খেলায় নিজেদের সেরাটা দিতে মরিয়া তারা। অবশ্য টেস্ট ম্যাচ ঘিরে বন্দরনগরী চট্টগ্রামের মানুষের মধ্যে খুব একটা আগ্রহ দেখা যায়নি। এমনকি টিকিট বিক্রির কেন্দ্রগুলোতেও ছিল না কোনো ভিড়। হয়তো টি-টোয়েন্টি সিরিজের সব ম্যাচ হারের কারণেই আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন টাইগার-ভক্তরা। তবে ফরম্যাট ভিন্ন হওয়ায় মুমিনুল হক কিন্তু হাল ছাড়ছেন না। বরং তিনি মনে করেন, ৫ দিনের প্রতিটা সেশনে যে দল ভালো খেলবে শেষ পর্যন্ত তারাই জয়ী হবে।

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের নতুন চক্রের শুরুতেই প্রতিপক্ষ হিসেবে পাকিস্তানকে পেয়েছে বাংলাদেশ। এই দলটির বিপক্ষে অতীত রেকর্ড মোটেও সুখকর নয় টাইগারদের। ১১ টেস্ট ম্যাচের মধ্যে হার ১০টিতেই। ড্র আছে একটি। চট্টগ্রামে খেলা হওয়ায় এবার ভালো কিছুর স্বপ্ন বুনছেন টাইগাররা। তবে থাকছে দুশ্চিন্তাও! করোনা মহামারীর পর এ বছরের শুরুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরে বাংলাদেশ। ফেব্রুয়ারিতে এই বন্দরনগরী চট্টগ্রামেই প্রথম টেস্টে মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। চার দিন পর্যন্ত ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ ছিল স্বাগতিকদের হাতেই। অথচ শেষ দিনে মায়ার্সের অপরাজিত ২১০ আর বোনারের ৮৬ রানের ইনিংসে ভর করে ম্যাচটি ৩ উইকেটে জিতে নেন সফরকারীরা। এ বছর এখন পর্যন্ত ৫টি টেস্ট ম্যাচ খেলে টাইগারদের জয় মাত্র একটি। ড্রও একটি। দেশের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে ২-০ তে টেস্ট সিরিজ হারের পর শ্রীলংকা সফরে একটি ড্র ও জিম্বাবুয়ে সফরে জয় পায় বাংলাদেশ। সবশেষ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পাওয়া জয়টা টাইগারদের ভালো খেলার টনিক হতে পারে। মুমিনুল হক নিজেও তা মনে করেন। দলে সাকিব, তামিম, মাহমুদউল্লাহ, মোস্তাফিজ, তাসকিন, শরিফুলদের মতো খেলোয়াড় না থাকাটা তার জন্য হতাশার! তবে যারা সুযোগ পেয়েছেন, তাদের প্রতি আস্থা রাখতে চান বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক। ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘সিনিয়র ক্রিকেটারদের কয়েকজন নেই, তরুণ অধিনায়ক হিসেবে এটি আমার জন্য ও দলের সবার জন্য হতাশাজনক। তবে ওই জায়গায় পড়ে থাকলে হবে না। নতুন যারা খেলবে, জুনিয়র যারা আছেÑ সবার জন্য এটি সুযোগ নিজেদের মেলে ধরার এবং নিজেদের সামর্থ্য দেখানোর।’

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের উইকেট দেখে ভালো বলে মনে হয়েছে মুমিনুল হকের। এখানকার পিচে ব্যাটসম্যানরা সহায়তা পাবেন বলে মনে করেন তিনি। তবে একাদশ কেমন হতে পারে সে বিষয়ে পরিষ্কার কোনো ধারণা দেননি। গতকাল সন্ধ্যায় হুট করেই বাংলাদেশ দলে নেওয়া হয়েছে খালেদ আহমেদ ও শহিদুল ইসলামকে। স্কোয়াড ১৫ জন থেকে বেড়ে তাই হয়ে গেল ১৭। বাংলাদেশের অধিনায়ক জানিয়েছেন, ব্যাটিং বিভাগই তাদের শক্তির জায়গা। একাদশে যে বিশেষজ্ঞ আটজন ব্যাটসম্যান থাকছে, তা মোটামুটি পরিষ্কার। আর স্পিন বিভাগে তাইজুল-মিরাজে আস্থা রাখছেন তিনি। তবে পাকিস্তান গতকালই ১২ জনের দল দিয়ে দিলেও মুমিনুল বলেছেন, ম্যাচের দিন উইকেট দেখার পরই তারা সেরা একাদশ ঘোষণা করবেন।

বাংলাদেশ টেস্ট দল : মুমিনুল, সাদমান, সাইফ, শান্ত, মুশফিক, লিটন, সোহান, মিরাজ, নাঈম হাসান, তাইজুল, ইয়াসির আলি, আবু জায়েদ, ইবাদত, মাহমুদুল হাসান জয়, রেজাউর রহমান রাজা, খালেদ, শহিদুল।

advertisement
advertisement