advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

ইউপি ভোটে মনিটরিং সেল ইসির

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৬ নভেম্বর ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৬ নভেম্বর ২০২১ ০২:৩৪ এএম
advertisement

তৃতীয় ধাপের এক হাজার ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) ও অষ্টম ধাপের ৯টি পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে মনিটরিং সেল করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি ইসির প্রধান কার্যালয় থেকে মনিটরিং করবে এ সেল। ইসির আইডিইএ প্রকল্প ২-এর প্রকল্প পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবুল কাশেম মো. ফজলুল কাদেরকে প্রধান করে গতকাল গঠিত এ সেলে ছয় সদস্য রাখা হয়েছে।

সেলের অন্য সদস্যরা হলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের উপসচিব পদমর্যাদার নিচে নয় এমন একজন কর্মকর্তা, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের পুলিশ সুপার/অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদমর্যাদার নিচে নয় এমন একজন কর্মকর্তা, বিজিবি/র‌্যাব/আনসার ও ভিডিপি/কোস্টগার্ডের মেজর/উপপরিচালক পদমর্যাদার নিচে নয় এমন একজন করে কর্মকর্তা এবং আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার/সহকারী পুলিশ সুপার পদমর্যাদার নিচে নয় এমন একজন কর্মকর্তা।

ইসি সূত্র জানায়, এই সেলের উদ্দেশ্য হচ্ছে নির্বাচনের দিন আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সম্পর্কে নির্বাচন কমিশনকে জানানো, সেলে অন্তর্ভুক্ত সংশ্লিষ্ট সংস্থার প্রতিনিধি কর্তৃক নির্বাচন উপলক্ষে মোতায়েন করা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের অবস্থান ও সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে জ্ঞাতকরণ, ভোটকেন্দ্রে বা নির্বাচনী এলাকায় শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মধ্যে সমন্বয় সাধন, ইভিএমসহ বিভিন্ন নির্বাচনী মালামাল পরিবহন, বিতরণ এবং ভোটগ্রহণ কাজে নিরাপত্তা বিধানের জন্য মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মধ্যে সমন্বয় করে রিটার্নিং অফিসার ও প্রিসাইডিং অফিসারদের সহায়তা দেওয়া ইত্যাদি।

পক্ষপাতমূলক আচরণে কঠোর ব্যবস্থা

ইউপি নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে পক্ষপাতমূলক আচরণের অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ক্ষেত্র বিশেষে প্রত্যাহার ও আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচন কেন্দ্র করে গত বুধবার নির্বাচন ভবনে অনুষ্ঠিত আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক বিশেষ সভায় এসব আলোচনা উঠে আসে। বৈঠকে কয়েকজন কর্মকর্তার বক্তব্যে বার বার আচরণ বিধি লঙ্ঘনের ঘটনা উঠে আসে। এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে আরও কঠোর ও দ্রুত সিদ্ধান্ত দিতে অনুরোধ জানান তারা। সংসদ সদস্য বা রাজনৈতিক নেতারা নির্বাচন প্রভাবিত করার চেষ্টা করলে অভিযোগ অনুযায়ী মামলা দায়ের বা সংশ্লিষ্ট এলাকায় ভোট বন্ধের মতো উদাহরণ সৃষ্টি করে, এমন পদক্ষেপ নেওয়ারও সুপারিশ এসেছে। বৈঠকে অংশ নেওয়া একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে এসব তথ্য জানা গেছে।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার ও কবিতা খানম নির্বাচনে অনিয়ম ও সহিংস ঘটনায় তাৎক্ষণিক তথ্য না পাওয়ার বিষয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। তারা বলেন, সময়মতো আমরা তথ্য জানতে পারি না। মাঠ প্রশাসন থেকে আমাদের তথ্য দেওয়া হয় না। গণমাধ্যম বা অন্যান্য মাধ্যমে আমাদের কাছে খবর আসে। ওই খবর অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে গিয়ে সময়ক্ষেপণ হয়। ইসির একজন কর্মকর্তা বলেন, নারায়ণগঞ্জ, ঢাকার কেরানীগঞ্জ ও মানিকগঞ্জের কয়েকটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ঝামেলা রয়েছে। কিন্তু গোয়েন্দা সংস্থার কোনো প্রতিবেদনে তা উঠে আসেনি। এতে প্রস্তুতি নিতে সমস্যা হচ্ছে।

বৈঠকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, একেক ধাপে অনেক বেশি ইউনিয়ন পরিষদে ভোট থাকায় ফোর্স মোতায়েনে সমস্যা হচ্ছে। প্রতি ধাপে ৪০০ ইউপিতে ভোট করলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েনে সুবিধা হয়।

জানা গেছে, বৈঠকে বারবার আচরণবিধি লঙ্ঘন ও নির্বাচন কর্মকর্তাদের সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন না করার কয়েকটি ঘটনা উঠে আসে। একজন কর্মকর্তা বলেন, কিছু রাজনৈতিক নেতা নির্বাচনে ডাবল স্ট্যান্ড নিচ্ছেন। একই উপজেলার কোনো ইউপিতে নৌকা প্রার্থীকে আবার কোনো ইউপিতে বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষে অবস্থান নেন। তারা পছন্দের প্রার্থীকে জেতাতে নির্বাচনী কার্যক্রম প্রভাবিত করেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ওপরে চাপ সৃষ্টি করছেন। এতেও সহিংস ঘটনা ঘটছে।

জানা গেছে, নির্বাচনে পক্ষপাতের অভিযোগ পেলে ইউএনও, ওসিসহ যে কোনো পর্যায়ের কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করা হবে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও পুলিশের পক্ষ থেকেও জানানো হয়, কমিশনের নির্দেশনা পেলে যে কোনো পর্যায়ের কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করে তারা দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চায়।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় নির্বাচন কমিশনার, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব, ইসি সচিব, র‌্যাব, আনসার ও গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআইয়ের মহাপরিচালক, মন্ত্রিপরিষদ সচিবের প্রতিনিধি এবং পুলিশের আইজির প্রতিনিধি অংশ নেন।

advertisement
advertisement