advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement

মুশফিক-লিটনের ব্যাটে দারুণ দিন বাংলাদেশের

সুসান্ত উৎসব, চট্টগ্রাম থেকে
২৭ নভেম্বর ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৭ নভেম্বর ২০২১ ০২:৩৮ এএম
লিটনের সেঞ্চুরি আর মুশফিকের ফিফটি ছাড়ানো ইনিংসে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম দিনশেষে টাইগারদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ২৫৩ রান। মুশফিক ৮২ ও লিটন ১১৩ রানে অপরাজিত। গতকাল চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ষ বিসিবি
advertisement

সকালের শুরুতেই বিষাদ জেঁকে বসল সাগরিকায়। উইকেটে থিতু হওয়ার আগেই ওমন ব্যাটিং বিপর্যয়ে হতবিহ্বল টাইগার শিবির। প্রথম সেশন শুরুর মাত্র ৫৮ মিনিটের মধ্যে টপ অর্ডারের চার ব্যাটসম্যান ফিরেছেন ড্রেসিংরুমে। সাদা পোশাকে এমন মলিন শুরুর পর ‘ত্রাতার’ ভূমিকায় লিটন দাস ও মুশফিকুর রহিম। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দিনের বাকি সময়টা রঙিন করে তোলেন বাংলাদেশের এই দুই ব্যাটসম্যান। লিটনের সেঞ্চুরি আর মুশফিকের ফিফটি ছাড়ানো সেঞ্চুরি ছুঁই ছুঁই ইনিংসে প্রথম দিনশেষে টাইগারদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ২৫৩ রান। আলোকস্বল্পতার কারণে এ দিন ৫ ওভার বাকি থাকতেই ম্যাচের পর্দা টেনে দেন আম্পায়ার। আজ দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু হবে নির্ধারিত সময়ের ১৫ মিনিট আগে। মুশফিক ৮২ ও লিটন ১১৩ রানে ইনিংস শুরু করবেন।

ভোরবেলায় ভূমিকম্পের কম্পনে ঘুম ভেঙেছে চট্টগ্রামবাসীর। বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মধ্যকার চট্টগ্রাম টেস্ট শুরু হওয়ার পর জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের পাশে একটি রাসায়নিক কারখানায় আগুন লাগলে কালো ধোঁয়ায় ছেয়ে যায় সেখানকার আকাশ!

টাইগার শিবিরেও তখন গ্রাস করেছে হতাশার কালো মেঘ। মুমিনুল হক হয়তো মনে মনে বলছিলেন, টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং নেওয়ার সিদ্ধান্তটা কি তবে ভুল ছিল! অধিনায়ককে যে শুরুতেই একরাশ হতাশা উপহার দিয়েছেন সাইফ (১৪), সাদমান (১৪)। মুমিনুল (৬) নিজেও তো ‘প্রিয়’ আঙিনায় বিবর্ণ। শান্ত (১৪) যখন ফিরলেন তখন দলীয় সংগ্রহ ৪৯-৪। টাইগারদের ড্রেসিংরুমে যেমন হতাশার কালো মেঘ তেমনি গ্যালারিতে উপস্থিত হাজার চারেক দর্শকও তো চুপসে গেছেন। টপ অর্ডারের এমন হুড়মুড় করে ভেঙে পড়াটা তাদের বাকরুদ্ধ করে দিয়েছিল। এর পরই মুশফিক-লিটনের ব্যাটে আশার আলোর দেখা মিলল। তাদের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে একটু একটু করে সরে যেতে থাকল হতাশার কালো মেঘ। দর্শকদের মুখেও ফেরে হাসি। বিশ্বকাপ ব্যর্থতায় পাকিস্তান সিরিজের টি-টোয়েন্টি দলে জায়গা হয়নি মুশফিক ও লিটনের। অথচ তাদের ব্যাটেই এখন বড় সংগ্রহের স্বপ্ন দেখছেন টাইগাররা। শুরুর ধাক্কাটা সামলে স্বস্তি নিয়েই প্রথম দিনটা শেষ করতে পেরেছেন স্বাগতিকরা। পাকিস্তানের বোলারদের শুরুতে মুখে হাসি ছিল; শেষে তা মলিন। শুরুতে সাফল্য পেলেও আফ্রিদি, হাসান, আশরাফদের বাকি সময়টা যে উইকেট পাওয়ার জন্য মাথা খুঁটতে হয়েছে।

রঙিন পোশাকে বিবর্ণ হলেও সাদা পোশাকে এ বছরটা দারুণ কাটছে লিটন দাসের। আগের ৫ টেস্টে চারটি ফিফটি (৬৯, ৭১, ৫০, ৯৫) রয়েছে তার। সবশেষ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হারারে টেস্টে ৯৫ রানের ঝলমলে ইনিংস খেলেন তিনি। ৫ রানের জন্য টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি করা হয়নি তার। তবে যেখান থেকে শেষ করেছিলেন, পাকিস্তানের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে যেন সেখান থেকেই শুরু করলেন এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। এবার ক্রিকেটবিধাতা আর তাকে নিরাশ করেননি। ২৬ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে ৪৩তম ইনিংসে এসে প্রথম শতরানের স্বাদ পেলেন লিটন। অবশ্য উদযাপন ছিল সাদামাটা। ৯৫ বলে ফিফটি করা লিটন সেঞ্চুরি ছুঁয়েছেন ১৯৯ বলে। এবার সেঞ্চুরির অপেক্ষায় মুশফিক। বিশ্বকাপ ব্যর্থতায় তাকেও তো কম সমালোচনার তীরে বিদ্ধ হতে হয়নি। ১০৮ বলে ফিফটি করা মুশফিক আজ ১৮ রান করলেই টেস্ট ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরির স্বাদ পাবেন।

৪৯ রানে ৪ উইকেট হারানোর পর হতাশার চাদর গ্রাস করে টাইগার শিবিরে। পঞ্চম উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ২০৪ রানের জুটি গড়ে দলকে ভালো সংগ্রহের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন তারা। মুশফিক-লিটনের দিকে এখন তাকিয়ে সবাই। চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে আজ নতুন কোনো কাব্য রচনা করবেন কি লিটন-মুশফিক? সেটা সময়ের হাতেই তোলা থাক।