advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

হাসপাতালে বাড়ছে কোভিড রোগী
সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিন

১১ জানুয়ারি ২০২২ ১২:০০ এএম
আপডেট: ১১ জানুয়ারি ২০২২ ০৭:৪৭ এএম
advertisement

রাজধানীর সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে কোভিড রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। রাজধানীর নামিদামি অনেক বেসরকারি হাসপাতালে এরই মধ্যে দেখা দিয়েছে কোভিড শয্যার সংকট। অথচ সপ্তাহখানেক আগেও এসব হাসপাতালে কোডিভ শয্যা অনেকটা ফাঁকাই ছিল। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি দ্রুত নিয়ন্ত্রণে না এলে অচিরেই সরকারি হাসপাতালেও কোভিড শয্যার সংকট দেখা দেবে।

গতকাল আমাদের সময়ের প্রতিবেদনে জানা যায়, শনাক্তের হার ৬ শতাংশ ছাড়িয়েছে। পশ্চিমবাংলায় এই হার ২৬ শতাংশ ছাড়িয়েছে। সেখানে ৭০ শতাংশই ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট। তবে সিকুয়েন্সিং সুবিধা না থাকায় আমাদের দেশে ওমিক্রনের হার বোঝা যাচ্ছে না।

মনে রাখতে হবে করোনা সংক্রমণ রোধে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে, যতটা সম্ভব জনসমাগম ও ভিড় এড়িয়ে চলতে হবে। দৈনন্দিন কাজে যেসব স্থানে মানুষকে যেতেই হয়, সেখানে স্বাস্থ্যবিধি মানতে সবাইকে বাধ্য করা। এ ক্ষেত্রে সরকারের দায়িত্ব আছে। কেবল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দিয়ে এটি সম্ভব নয়। এজন্য জনগণকে সম্পৃক্ত করতে হবে; বিশেষ করে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, নাগরিক সমাজ ও তরুণদের।

সরকার টিকা কর্মসূচি জোরদার করেছে, এটি ভালো সংবাদ। নিয়মিত টিকা কর্মসূচির সঙ্গে সমন্বিত টিকা কর্মসূচিও শুরু হয়েছে; এতে কম সময়ে অনেক বেশি মানুষ টিকা পাবেন। সেই সঙ্গে বুস্টার ডোজ দেওয়াও অব্যাহত আছে।

আমাদের মতো দুর্বল স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার দেশে টিকাদান কর্মসূচি শক্তিশালী করার ওপর আরও বেশি মনোযোগ দেওয়া উচিত। কারণ টিকা হাসপাতালে ভর্তি ও মৃত্যু কমাবে।

হসপিটাল ও হেলথকেয়ার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম যেন না ভেঙে পড়ে সেই ব্যবস্থাপনা ঠিক করে রাখতে হবে। করোনার সব হাসপাতাল, নার্স, ডাক্তার, বয়, অক্সিজেন সাপ্লাই, আইসিইউ বেড, স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রীর পর্যাপ্ততা এবং প্রস্তুতি এক্ষুণি নিয়ে রাখতে হবে। টেস্টের সংখ্যা অতিদ্রুত যেন বৃদ্ধি করা যায় সে ব্যবস্থা নিয়ে রাখতে হবে।

advertisement
advertisement