advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

পশ্চিমবঙ্গে ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮

অনলাইন ডেস্ক
১৪ জানুয়ারি ২০২২ ০৯:২৯ এএম | আপডেট: ১৪ জানুয়ারি ২০২২ ০৯:২৯ এএম
ছবি : সংগৃহীত  
advertisement

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশের জলপাইগুড়িতে গৌহাটি-বিকানার এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুতের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার জলপাইগুড়ির দোমোহনি এলাকায় স্থানীয় সময় বিকেল ৫টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনায় ৫ নিহত এবয় অন্তত ৪৫ জন আহত হয় বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানায়।

জলপাইগুড়ির জেলা প্রশাসক মৌমিতা গোদারা বসু বলেন, ‘উদ্ধারকাজ চলছে। ময়নাগুড়ি স্টেশনে ঢোকার মুখেই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। আমরা আলোর ব্যবস্থা করে উদ্ধারকাজ চালাচ্ছি।’তাৎক্ষণিকভাবে ৪০ জনের বেশি মানুষকে আহত অবস্থায় উদ্ধারের পর জলপাইগুড়ি সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।পশ্চিমবঙ্গের বাংলা দৈনিক আনন্দবাজার বলছে, পাটনা থেকে গুয়াহাটিগামী ওই ট্রেনটি বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা নাগাদ দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে আলিপুরদুয়ার থেকে উদ্ধারকারী দলের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেছেন। ট্রেনটির কয়েকটি বগি দুমড়ে মুচড়ে যাওয়ায় হতাহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। দুর্ঘটনার সময় ট্রেনটির গতিবেগ ঘণ্টায় ৪০ কিলোমিটার ছিল বলে প্রাথমিকভাবে জানানো হয়েছে। ভারতের উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের জনসংযোগ কর্মকর্তা নীলাঞ্জন দেব বলেন, বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা নাগাদ গুয়াহাটি-বিকানের এক্সপ্রেস লাইনচ্যুত হয়েছে। আলিপুরদুয়ার ডিভিশনের নিউ ময়নাগুড়ি এবং নিউ দোমোহনি সেকশনে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

আনন্দবাজার বলছে, ট্রেন দুর্ঘটনার স্থানে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় উদ্ধারকাজ শুরু হয়েছে। দুর্ঘটনায় ট্রেনের কয়েকটি বগি উল্টে যাওয়ায় অনেকেই চাপা পড়েছেন। উদ্ধারকর্মীদের পাশাপাশি স্থানীয়রাও ট্রেনের নিচে চাপা পড়া যাত্রীদের উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছেন।

এদিকে আজ শুক্রবার ভোরেই দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জন বার্লা। তিনি বলেন, উদ্ধারকাজ চলছে। কীভাবে এ দুর্ঘটনা ঘটলো, তার তদন্ত করা হবে।

advertisement
advertisement